এখনো ভারতীয় সমাজে অনেকেই মনে করে  বিয়ে  হলো অনেক সমস্যার সমাধান | ছেলে বিপথে যাচ্ছে‚ বিয়ে দিলেই সে দায়িত্ববান হয়ে উঠবে | বা মেয়ের মানসিক রোগ দেখা দিয়েছে বিয়ে দিলেই তা সেরে যাবে | আর বিয়ের পর স্বামী স্ত্রীর মধ্যে যদি সমস্যা হয় তাহলে? কেন বাচ্চা হলেই তা ঠিক হয়ে যাবে |

এক ছাদের তলায় সারা জীবন একই স্বামী বা একই স্ত্রীর সঙ্গে কাটানো খুবই কঠিন ব্যাপার | বিবাহিত জীবন যাপন করার জন্য স্বামী স্ত্রী দুজনেরই অসীম ধৈর্য দরকার | বিভিন্ন কারণে যেমন বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক‚ স্ট্রেস‚ আর্থিক সমস্যা‚ পরিবারের অন্য সদস্যের হস্তক্ষেপ এইসবের কারণে বিবাহিত জীবনে ভাঙন দেখা দিতে পারে | কিন্তু এখনো অনেকেই মনে করেন বিয়ে ভেঙে যাওয়ার হাত থেকে বাঁচা যেতে পারে যদি একটা সন্তান হয় তাহলে | এইসময় মহিলাদের বাড়ির বয়স্করা অনেকেই পরামর্শ দেবে মা হওয়ার জন্য চেষ্টা করার | তাদের লজিক হলো একটা বাচ্চা হলে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে একটা বন্ধন তৈরি হবে যা তাদের বিয়ে বাঁচিয়ে দেবে |

কিন্তু সত্যিই কী বাচ্চা সমস্যার সমাধান হতে পারে?

বিবাহিত জীবনে বিভিন্ন কারণে সমস্যা নেমে আসতে পারে | তাই বাচ্চা হলেই যে সব কিছুর সমাধান হয়ে যাবে এমনটা ভাবা বোকামি ছাড়া কিছুই নয় | অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গেছে বাচ্চা আসার পর সমস্যার আরো বৃদ্ধি হয়েছে | এছাড়াও একটা বাচ্চা আসা মানে সংসারে বাড়তি খরচা‚ যা সমস্যা আরো বাড়িয়ে তুলতে পারে | এছাড়াও দেখা গেছে বাচ্চা হওয়ার পর অনেক ক্ষেত্রে স্বামী বা স্ত্রী আগের থেকেও অধৈর্য হয়ে উঠেছে বা তাদের স্বভাব আরো খিটখিটে হয়ে উঠেছে যা পরিস্থিতি আরো জটিল করে দেয় |

এছাড়াও সমীক্ষা করে দেখা গেছে অনেক ক্ষেত্রে বিয়ের পর বাচ্চা আসায় স্বামী স্ত্রীর মধ্যে দূরত্ব বেড়ে গেছে বা স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কে চিড় ধরেছে | অনেক ক্ষেত্রে আবার হয়তো একজনের ইচ্ছা নেই বাবা বা মা হওয়ার কিন্তু তার ওপর জোর করে এই দায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া হলো | এই ক্ষেত্রে অনেকেই অনিচ্ছা থাকলেও বাচ্চার দায়িত্ব তুলে নেয় | কিন্তু অনিচ্ছার সঙ্গে যদি কোনো জিনিস করা হয় তার পরিণতি কখনোই ভালো হয় না |

অবশ্য অনেক মনোবিদই বিশ্বাস করেন ভারতীয় পরিবারে বাচ্চা আসার পর স্বামী স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক আরো দৃঢ় হয় | যেমন ধরুণ বিয়ের কয়েক বছরের মাথায় যদি কোনো দম্পতির বাচ্চা না হয় তখন ধরে নেওয়া হয় স্ত্রীর মধ্যে নিশ্চয়ই কোনো দোষ আছে তাই সে মা হতে পারছে না | এর ফলে সেই মহিলা কিন্তু সব সময়ই স্ট্রেসের মধ্যে থাকছে | ফলে তার স্বামীর সঙ্গে তার সম্পর্কে চিড় ধরতে পারে | কিন্তু মা হওয়ার পর তার দুর্নাম ঘুচবে এবং সে স্ট্রেস ফ্রি হবে‚ যা স্বামী স্ত্রী কে কাছে আনতে সাহায্য করবে |

আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে বাচ্চা হওয়ার পর বাবা মা আর সব কিছু ভুলে বাচ্চাকে কেন্দ্রবিন্দু করে তোলে | এর ফলে অন্য সমস্যা চাপা পড়ে যায় |

আবার অনেক সময় বাচ্চার আগমন স্বামী স্ত্রীর মধ্যে স্ট্রেস বাস্টার হিসেবেও কাজ করে | অবশ্য শুধুমাত্র স্বামী স্ত্রী নয় গোটা পরিবারের ক্ষেত্রেই তা স্ট্রেস বাস্টারের কাজ করে যা গোটা পরিবারকে একসঙ্গে জুড়তে সাহায্য করে |

আরও পড়ুন:  মাছ খাচ্ছেন না বিষ খাচ্ছেন!?

1 COMMENT