যব ছোড় চলে লখনৌ নগরী

শুধু নগরী নয় | তাঁকে ছেড়ে চলে আসতে হয়েছিল প্রাণের চেয়ে প্রিয় অওয়ধ | নবাবি চলে যাওয়ার মুহূর্তেও চোখে জল আসেনি | কারণ মনে করতেন‚ একমাত্র সঙ্গীত এবং কবিতাই প্রকৃত পুরুষের চোখে জল আনতে পারে | তিনি অওয়ধের শেষ নবাব ওয়াজিদ আলি শাহ |

তিনি অওয়ধ ছেড়ে চলে এলেও অওয়ধ তাঁকে ছেড়ে যায়নি | নির্বাসনের শহর কলকাতায় বানিয়েছিলেন লখনৌয়ের ছোট সংস্করণ | তাঁর হাত ধরেই কলকাতায় আসে বিরিয়ানি |

ওয়াজিদ আলি শাহ-য়ের জন্ম ১৮২২ খ্রিস্টাব্দে | সিংহাসনে বসেছিলেন ১৮৪৭-এ | ৯ বছর পরে সিংহাসনচ্যুত | ১৮৫৮-এ নির্বাসনে কলকাতার গার্ডেন রিচের বিচালি ঘাটে | ব্রিটিশ কলকাতার অভিজাত উদ্যান-এলাকায় নবাবের মতোই থাকতেন তিনি | নির্বাসনেও বার্ষিক উপার্জন ছিল কয়েক লক্ষ টাকা | ৩১ বছর নির্বাসনে কাটাবার পরে তাজ হারানো এই নবাব কলকাতায় প্রয়াত হন ১৮৮৭ খ্রিস্টাব্দে |

পরবর্তীকালে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত‚ কলকাতায় এখনও আছেন তাঁর উত্তরসূরীরা | তালবাগানে শাহেবজাদে ওয়াসিফ মির্জার দাবি‚ তাঁরা ওয়াজিদ আলি শাহ-এর বংশধর |

লখনৌয়েও আছেন নবাবের বংশধরা | সীতাপুরে মেহমুদাবাদে এখনও আলি নকি খানের বাড়িতে জ্বলে দিওয়ালিতে মাটির প্রদীপ | তাঁরা নাবাব নিজেদের ওয়াজিদ আলি শাহ-এর বংশধর বলে দাবি করেন | ওয়াজিদ আলি শাহ ছিলেন ধর্ম প্রাণ শিয়া মুসলিম | কিন্তু অংশ নিতেন হিন্দুধর্মের দিওয়ালি ও হোলির মতো উৎসবে |

সেই ধারা বয়ে নিয়ে চলেছেন তাঁর উত্তরসূরীরাও | ১৯২০-র দশক অবধিও মেহমুদাবাদে সবার আগে আলি নকি খানের বাড়িতে দিওয়ালিতে প্রথম জ্বলত প্রদীপ | তারপর মহল্লার অন্য বাড়িতে | সম্মান প্রদর্শনের এই রীতি অবশ্য কবেই চলে গেছে |

কলকাতা-লখনৌ‚ এই দুই তরফের বংশধারার আপত্তি এক ফরাসি নাগরিককে নিয়ে | জন্মসূত্রে ইরানিয়ান ওই মহিলার নাম জাহানারা ফে অ্যারে | তাঁর দাবি তিনি ওয়াজিদ আলি শাহ ও তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রীর সরাসরি বংশধরের স্ত্রী | জাহানারা Royal Awadh Cultural and Heritage Foundation বা RACH নামে একটি সংস্থা পরিচালনা করেন | চ্যারিটির জন্য নীলাম করে থাকেন নিজের গয়না | কিন্তু নিরাপত্তার খাতিরে বলেন না স্বামীর নাম |

কিন্তু কলকাতা ও লখনৌ‚ এই দুই শহরে নবাবের বংশধরদের দাবি‚ ওই ফরাসি নাগরিক কোনওমতেই ওয়াজিদ আলি শাহ-এর বংশের বধূ নন |

নবাবের প্রয়াণের ১৩০ বছর পরে চলতেই থাকে বিতর্ক | মেটিয়াবুরুজের আনাচে কানাচে ভেসে বেড়ায় ওয়াজিদ আলি শাহ্-এর ঠুংরি |

বাবুল মোরা নৈহর ছুটো হি জায়

আরও পড়ুন:  ভাগ্যিস খাজনা পেতে সমস্যা হচ্ছিল সম্রাট আকবরের ! নইলে কোথায় পেতাম বাংলা নববর্ষ‚ হালখাতা

NO COMMENTS