বলিউডে বাবা-ছেলের জুটির কথা যদি ওঠে তাহলে তালিকার প্রথমে থাকবে রাকেশ রোশন এবং হৃতিক রোশনের নাম | দুজনে মিলে কহো না প্যায়ার হ্যায়‚ কোই মিল গয়া এবং সর্বশেষ কাবিল-এর মতো ব্লকবাস্টার হিট ছবি দিয়েছেন | অন্যদিকে হৃতিকের কাকা রাজেশ রোশন একজন জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিচালক | কিন্তু অনেকেই জানে না হৃতিকের ঠাকুরদা রোশনলাল নাগরথের অবদানও কিছু কম নয় ভারতীয় সিনেমায় | উনিও ছিলেন একজন সুরকার এবং সঙ্গীত পরিচালক |

রোশনলাল নাগরথ

বহু ছবি যেমন মমতা‚ বারসাত কি এক রাত‚ আরতি‚ আনোখি রাত আর তাজমহল শুধুমাত্র গানের জন্যেই হিট হয় | কিন্তু এই সাফল্য সহজে ধরা দেয় নি রোশনের ( উনি এই নামেই পরিচিত ছিলেন ) কাছে | এমন একটা সময় এসেছিল যখন উনি আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন |

১৯৪৯ সালে মুক্তি পায় নেকি অঔর বাদি | সেটাই সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে রোশনের প্রথম ছবি | ছবির পরিচালক ছিলেন কিদার শর্মা | কিন্তু ছবি বক্স অফিসে একে বারেই সফল হলো না | আর এতেই ভেঙে পড়লেন রোশনলাল | উনি একদিন এই ছবির পরিচালককে জানান  শর্মা জি‚ আমি আত্মহত্যা করতে চাই | 

স্ত্রী ও দুই পুত্র রাকেশ ও রাজেশের সঙ্গে রোশনলাল

পরিস্থিতি হাল্কা করতে কিদার শর্মা ওঁকে বলেন  তুমি জলে ঝাঁপিয়ে আত্মহত্যা করো | ভারসোভায় জল বেশ গভীর ‚ ওখানেই যাও | খবরদার হাজি আলির কাছে যেও না কারণ ওখানে জল খুব একটা গভীর নয় |  এরপর উনি রোশনকে বলেন এত ভেঙে না পড়তে | উনি ওঁকে এও বলেন সিনেমা বানানো আর জুয়া খেলা একই জিনিস | তাই এত মুষড়ে পড়ার কিছু নেই |

যাই হোক‚ ১৯৫০ সালে কিদার শর্মা ওঁকে বাওরা নয়ন অফার করেন | যদিও ডিস্ট্রিবিউটার এবং কিদারের টিম প্রথম থেকেই এর বিরুদ্ধে ছিল | কিন্তু ছবি মুক্তি পাওয়ার পর তা সুপার হিট হয় | এবং একই সঙ্গে রোশনলালের জায়গাও পাকাপোক্ত হয় |

এতক্ষণে নিশ্চই বুঝতে পেরে গেছেন হৃতিকরা কোথা থেকে  রোশন  পদবি পেয়েছেন |

আরও পড়ুন:  'টিউবলাইট'-এর ব্যর্থতার দায় নিলেন সলমন‚ ক্ষতিপূরণ দেবেন ডিস্ট্রিবিউটরদের
- Might Interest You

NO COMMENTS