শেষ যাত্রায় ইন্দর কুমার

গত ২৮ জুলাই মাত্র ৪৩ বছর বয়সে মারা যান অভিনেতা ইন্দর কুমার | ওঁকে শেষবার ওয়ান্টেড ছবিতে সলমন খানের ভাইয়ের চরিত্রে দেখা গিয়েছিল | ইন্দর দীর্ঘদিন অভিনেত্রী ঈশা কোপিকরের সঙ্গে প্রেম করেন | পরে ওঁদের সম্পর্ক ভেঙে গেলে উনি বিয়ে করেন সোনাল কারিয়াকে | জন্মায় এক মেয়ে খুশী | কিন্তু সেই সম্পর্কও টিকলো না | প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে গেলে উনি বিয়ে করেন পল্লবীকে | এইবারেও জন্মায় এক মেয়ে | ইন্দরের মৃত্যুর পর ঈশা এবং সোনাল নানারকম অভিযোগ আনেন ইন্দরের বিরুদ্ধে | ঈশা জানান নিয়মিত মাদক সেবন আর মদ্যপানের জন্যেই অকালে চলে যেতে হলো ইন্দরকে | একই সঙ্গে উনি জানান ইন্দর মানসিক ভাবেও সুস্থ ছিলেন না |

দ্বিতীয় স্ত্রী পল্লবী ও মেয়ের সঙ্গে ইন্দর কুমার

অন্যদিকে সোনাল জানান বিয়ের পর নিয়মিত ওঁর গায়ে হাত তুলতেন ইন্দর | এমনকি উনি প্রেগন্যান্ট অবস্থায় বাড়ি ছেড়ে চলে যান | পরে মেয়ে জন্মানোর খবর পেয়েও একবারের জন্যেও ইন্দর নাকি তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি | এও শোনা যায় কাজ না থাকায় অর্থ কষ্টে ভুগছিলেন ইন্দর | এই সব অভিযোগ শোনার পর এতদিন চুপ ছিলেন ইন্দরের বর্তমান স্ত্রী পল্লবী | অবশেষে উনি একটা সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন ঈশা আর সোনালের করা প্রত্যেকটা অভিযোগ মিথ্যে |

পল্লবী জানিয়েছেন  আমারা সাধারণ ভাবেই জীবনযাপন করছিলাম | অভিযোগ ওঠে ও নাকি অর্থ কষ্টে ভুগছিল | এটা কিন্তু ভুল খবর | সম্প্রতি ইন্দর  ফটি পরি হ্যায় ইয়ার ‚  কৃণা  আর  হু ইজ দ্য ফার্স্ট ওয়াইফ অফ মাই ফাদার?  এই তিনটে কাজ শেষ করে | মানসিকভাবে অসুস্থ হলে ও কি এগুলো করতে পারতো? ও পুরো সুস্থ ছিল | আমি ওকে গত ১৭ বছর ধরে চিনি | 

ঈশা কোপিকরের সঙ্গে

ইন্দরের মাদক সেবন আর মদ্যপান নিয়ে কথা বলতে গিয়ে পল্লবী বলেন  ও দিনে পাঁচটা সিগারেট খেত | এটা কি খুব অ্যাবনর্মাল? আর বহুদিন ধরেই ও মদ ছুঁতো না অবধি | ঈশা কোপিকর জানিয়েছেন ইন্দরের নাকি দীর্ঘদিন ধরে মাদক সেবন আর মদ্যপানের জন্য মৃত্যু হয়েছে | ওকে একটা প্রশ্ন করতে চাই এইসব বদ অভ্যাস থাকা সত্ত্বেও উনি ১২ বছর ইন্দরের সঙ্গে প্রেম করলেন কেন? কেউ ১২ বছর ধরে একজন ড্রাগ অ্যাডিক্ট আর অ্যালকোহলিকের সঙ্গে এতদিন থাকতে পারে না | 


ইন্দর কুমারের প্রথম স্ত্রী সোনাল ও মেয়ে খুশী

একই সঙ্গে উনি জানিয়েছেন খবরের শিরোনামে উঠে আসার জন্য ইন্দরের প্রথম স্ত্রী সোনাল ইন্দরের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনেছে | ওর কথায়  আমি সোনালের অ্যাটিটিউড দেখে ভীষণ শকড? কেউ পাবলিসিটির জন্য এতটা নীচে নামতে পারে? কোই ইন্দর য্খন বেঁচে ছিলো তখন তো একদিনও সোনাল বলে নি যে ইন্দর ড্রাগ অ্যাডিক্ট‚ অ্যালকোহলিক আর ওয়াইফ-বিটার ছিলো? যে দিন ইন্দর মারা গেলো সেদিনই ও এইসব বলা শুরু করল | 

আরও পড়ুন:  শ্বেতা তিওয়ারির দ্বিতীয় বিয়েও কি ভাঙতে বসেছে!?

NO COMMENTS