জয়কিষণ বলুন বা জগ্গু দাদা বা জ্যাকি শ্রফ‚ এই সুপুরুষ অভিনেতার জন্ম গরিব পরিবারে | কিন্তু জেদ এবং কঠিন পরিশ্রমের সাহায্যে উনি বলিউডে নিজের জায়গা বেশ পাকাপোক্ত করে তোলেন | বাইরে থেকে এই অভিনেতা রাফ অ্যান্ড টাফ হলেও ওঁর মতো ভালোমানুষ নাকি আর দুটো হয় না | আর তাই হয়তো প্রথম দেখাতেই ১৩ বছরের আয়েষা প্রেমে পড়েছিলেন ওঁর | পরে আয়েশাকেই বিয়ে করেন জ্যাকি | আজকে রইলো ওঁদের লাভ স্টোরি |

আয়েষা সোনার চামচ মুখে দিয়ে জন্মছিলেন | ওঁর বাবা ছিলেন মুম্বাইয়ের বড় ব্যবসায়ী | একটা নামী ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পরতেন উনি | একদিন স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় স্কুল বাসের জানলা দিয়ে রাস্তা দেখছিলেন উনি | তখন ওঁর ১৩ বছর বয়স | এই সময় রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন জ্যাকি | আয়েষাকে ওই অবস্থায় দেখে ওঁর বেশ ভালো লাগে | কদিন পরে উনি আয়েষার সঙ্গে গিয়ে বন্ধুত্ব করার চেষ্টা করেন | আর আয়েষা প্রথম দেখাতেই ভালোবেসে ফেলেন জ্যাকিকে |

আয়েষা এবং জ্যাকির অর্থনৈতিক অবস্থার মধ্যে আকাশ-পাতাল তফাত ছিল | তাই আয়েষার সঙ্গে দেখা হওয়ার সেরকম সুযোগ ছিল না জ্যাকির | দ্বিতীয়বার ওঁদের দেখা হয় একটা রেকর্ডের দোকানে | আয়েষা সেখানে কয়েকটা গানের রেকর্ড কিনতে গিয়েছিলেন | আর জ্যাকি সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিলেন | আসলে দোকানের মালিকের ছেলের বন্ধু ছিলেন জ্যাকি | আর আয়েষা সেদিনই সিদ্ধান্ত নেন জ্যাকিকেই বিয়ে করবেন উনি |

এরপর ধীরে ধীরে ওঁদের দেখা-সাক্ষাৎ বাড়তে থাকে | দুজনেই মাঝে মধ্যে ডবল ডেকার বাসে চড়ে এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াতেন | মাঝে মাঝে সমুদ্রের ধার দিয়ে বহুদূর হেঁটেও যেতেন |

আয়েষার সঙ্গে দেখা হওয়ার আগে জ্যাকির অন্য একজন মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক ছিল | সেই মেয়ে পড়াশোনা করতে আমেরিকায় চলে যায় | সেই সময়ই জ্যাকির আলাপ হয় আয়েষার সঙ্গে | জ্যাকির প্রথম থেকেই মনে হয়েছিল আয়েষার সঙ্গে কোনদিন ওঁর সম্পর্ক হতে পারে না | এবং আয়েষা কদিন পরেই অন্য ছেলের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে ওঁকে ছেড়ে দেবেন | কিন্তু এরপর আয়েষা যা করলেন তার থেকে জ্যাকি আন্দাজ করতে পারলেন আয়েষা ওঁকে কতটা ভালোবাসেন |

আয়েষা জ্যাকিকে আমেরিকায় পাঠরত সেই অন্য মহিলাকে একটা চিঠি লিখতে বলেন | সেই চিঠিতে আয়েষা সেই মহিলাকে লেখেন উনি জ্যাকিকে খুব ভালোবাসেন এবং ওঁকে ছেড়ে থাকতে পারবেন না | তবে সেই মহিলা যদি রাজি হন ওঁরা তিনজন একসঙ্গে থাকতে পারেন | এই চিঠি অবশ্য পোস্ট করেন নি জ্যাকি | কিন্তু উনি বুঝতে পারলেন উনি যেমন আয়েষাকে ভবেছিলেন উনি সেরকম নন |

জ্যাকির সঙ্গে আয়েষার সম্পর্ক কোনদিন মেনে নিতে পারেন নি আয়েষার মা | জ্যাকি তখন একটা চউল-এ থাকেন | অন্যদিকে আয়েষা মুম্বইয়ের অভিজাত এলাকায় | কিন্তু আয়েষা ঠিক করে নিয়েছিলেন উনি জ্যাকিকে ছাড়া আর কাউকে বিয়ে করবেন না | তাই মা-বাবার অমতে উনি একদিন জ্যাকিকে বিয়ে করে তাঁর সঙ্গে চউলে থাকতে শুরু করলেন |

৫ জুন‚ ১৯৮৭ এ আয়েষার ২৭ তম জন্মদিনে ওঁরা অফিসিয়ালি বিয়ে করেন | বিয়ের পর যে আয়েষার সমস্যা হয় নি তা নয় | উনি অনর্গল ফ্রেঞ্চ ভাষায় কথা বলতেন আর অন্যদিকে জ্যাকি মুম্বইয়ের টাপোরেই ভাষায় অভ্যস্ত ছিলেন | তবে দুজনেই ধীরে ধীরে একে অপরের সঙ্গে মানিয়ে নিলেন | জ্যাকি ভালো জামাকাপড় পরাও শুরু করলেন |

১৯৯০ সালে ওঁদের ছেলে টাইগার জন্মায় আর ১৯৯৩ তে ওঁদের মেয়ে কৃষ্ণা | জ্যাকি বলিউডে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেন | এবং অনেক অর্থও উপার্জন করেছেন উনি | কিন্তু এখনো নাকি আগের মতোই সাধাসিধা ভাবে জীবন কাটাতে ভালোবাসেন উনি এবং আয়েষা |

আরও পড়ুন:  গুরমীত রাম রহিমের বায়োপিকে হানিপ্রীতের ভূমিকায় রাখী সাওয়ন্ত

NO COMMENTS