গরমকাল এলেই রাস্তার খাবার নিয়ে সতর্ক করতে থাকেন চিকিৎসকরা | এখন রাস্তার ফাস্ট ফুডের মধ্যে জনপ্রিয়তার প্রথম সারিতে আছে মোমো | সুস্বাদু এবং সস্তায় পকেটপুষ্টি | তাই রাস্তার স্টলে গোগ্রাসে হুশহাশ উড়ে যায় প্লেটের পর প্লেট মোমো |

যথারীতি তিব্বতি এই খাবারকে নিজেদের স্বাদ অনুযায়ী গড়েপিটে নিয়েছে বাঙালি | রাস্তার স্টলে যেভাবে বানানো হয়‚ তা অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর | তাই মোমোর প্লেট হাতে নেওয়ার আগে দুবার ভাবুন |

মোমো তৈরি হয় ময়দা থেকে | সব ফাইবার চলে যাওয়ার পরে সবথেকে বেশি স্টার্চ পূর্ণ অংশ হল ময়দা | স্বাদ থাকলেও খাদ্যগুণ একেবারেই নেই | তাছাড়া ময়দাকে নরম বানাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা মেশায় ক্ষতিকারক রাসায়নিক ও ব্লিচ | এই রাসায়নিক ও ব্লিচের প্রভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে অগ্ন্যাশয় | ফলে ব্যাহত হয় ইনসুলিন উৎপাদন | তাই মধুমেহ রোগী হলে ফিরেও তাকাবেন না ময়দা ও মোমোর দিকে | অধিকাংশ স্টলে ব্যবহৃত হয় নিম্নমানের ময়দা | পুর হিসেবে যেটা দেওয়া হয়‚ সেই চিকেন বা সব্জি‚ সেটাও তাজা নয় |

তিব্বতি রীতিতে মোমোর সঙ্গে তরল পানীয় হিসেবে পান করা হয় থুকপা | তবে রাস্তার স্টলে মোমোর পাশে বাটিতে যা থাকে তা সেটা থুকপা নয় | স্যুপও নয় | বরং অস্বাস্থ্যকর একটি তরল | যাতে থাকে প্রচুর মশলা ও শুকনো লঙ্কা |

তবে ডায়েটিশিয়ানরা বলে থাকেন‚ কারও খাবারে যদি নিয়মিত ভাবে ফাইবারের প্রাচুর্য থাকে‚ তবে একটু আধটু জাঙ্ক ফুড চলতেই পারে | তবে সেটা যেন সীমাবদ্ধ থাকে একটু আধটুর মধ্যেই | সপ্তাহে একাধিকবার নয় |

এরপরেও যদি মনে হয়‚ মোমো ছাড়া বৃথা এ জীবন‚ তবে বাড়িতে বানিয়ে নিশ্চিন্তে খান |

আরও পড়ুন:  চানাওয়ালার ঠেলায় করে শেষকৃত্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেকালের সুন্দরী কপর্দকহীন নায়িকার দেহ
- Might Interest You

NO COMMENTS