ব্যক্তিগত ক্ষতি |
এভাবেই আত্মস্থানন্দজি মহারাজ-এর প্রয়াণে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী | তাঁর দফতর থেকে পাঠানো হয়েছে পুষ্পস্তবক |

রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের পঞ্চদশতম অধ্যক্ষ স্বামী আত্মস্থানন্দ মহারাজকেই নিজের আধ্যাত্মিকতার পথপ্রদর্শক বলে মেনে এসেছেন মোদী | সংসার ছেড়ে সন্ন্যাসী হবেন বলে রামকৃষ্ণ মিশনে এসেছিলেন যুবক মোদী | কথিত‚ তখন মোদীকে সংসারে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন এই আধ্যাত্মিক পুরুষই | বলেছিলেন‚ সংসারে তখনও কাজ বাকি রয়েছে এই তরুণের | জীবনের পথ দেখানো এই নক্ষত্রের কাছে পরেও এসেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী |

১৯১৯ সালের মে মাসে জন্ম স্বামী আত্মস্থানন্দর | অবিভক্ত ভারতের ঢাকার কাছে সবাজপুরে | গৃহীজীবনের নাম ছিল সত্যকৃষ্ণ ভট্টাচার্য | ১৯৩৮ সালে মন্ত্রদীক্ষা গ্রহণ পরমহংসদেবের শিষ্য স্বামী বিজ্ঞানানন্দর কাছে | ১৯৪১ সালে যোগ দেন রামকৃষ্ণ মিশনে | তাঁকে ব্রহ্মচর্যে দীক্ষা দিয়েছিলেন স্বামী বিরজানন্দ | সত্যকৃষ্ণ নামকে পুরনো বস্ত্রের মতো ত্যাগ করে তিনি হয়ে ওঠেন ব্রহ্মচারী শান্তিচৈতন্য |

১৯৪৯ সালে সন্ন্যাস গ্রহণ | এ বার নতুন নাম হয় স্বামী আত্মস্থানন্দ | দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে মঠ ও মিশনের বিভিন্ন দায়িত্ব পালনের পরে ২০০৭ সালে তিনি এই সংস্থার অধ্যক্ষ নির্বাচিত হন |

দু বছর ধরে বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি | রবিবার সন্ধ্যায় ৯৮ বছর বয়সে প্রয়াত হয়েছেন তিনি | ভক্তদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপন শেষে সোমবার রাতে বেলুড় মঠে সম্পন্ন হবে তাঁর শেষকৃত্য |

আরও পড়ুন:  ধন্য ফেসবুকের প্রেম ! হরিয়ানার তরুণ চাষিকে বিয়ে করে ৪১ বছরের মার্কিন পার্টি-গার্ল এখন আদর্শ গৃহবধূ!
- Might Interest You

NO COMMENTS