দিনেদুপুরে পুকুরচুরি তো শুনেছেন |
জানেন‚ আস্ত নদী চুরি হয়ে যায় !
মাত্র চার দিনে |
চুরি করেছে স্বয়ং প্রকৃতি | ভূবিজ্ঞানীরা এই প্রাকৃতিক ঘটনার নাম দিয়েছেন রিভার পাইরেসি |

কানাডায় স্লিমস বলে এক নদী ছিল | প্রায় ৩০০ বছর আগে তার খাতে জল বইতে শুরু করেছিল | যোগান দিয়েছিল কাস্কাওয়ালশ হিমবাহ | কানাডার অন্যতম বড় হিমবাহগুলোর মধ্যে একটি |

গত বছর অস্বাভাবিক গরমে মাত্র চার দিনে শুকিয়ে গেছে নদীটি | পড়ে আছে শুকনো খাত | এরকম নয়‚ খুব শিগ্গির আবার ভরে যাবে জলে | কারণ প্রকৃতির খেয়ালে পরিবর্তিত হয়েছে হিমবাহর বরফ গলে জল বয়ে যাওয়ার অভিমুখ |

এই বিষয়ে বিজ্ঞানীদের গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে নেচার পত্রিকায় | তাঁরা দেখিয়ে দিয়েছেন কীভাবে উষ্ণ তাপপ্রবাহ অদৃশ্য করে দিতে পারে আস্ত এক নদীকে | ২০১৬ সালে সারা বিশ্ব জুড়েই অস্বাভাবিক হারে গরম পড়েছিল | রেহাই পায়নি কানাডাও | উষ্ণায়ণের প্রভাবে ধীরে ধীরে শুকিয়ে যেতে থাকে স্লিমস নদীখাত | ২৬ থেকে ২৯ মে-এর মধ্যে উধাও পুরো নদী | মন্দার বোসের কথায় ভ্যানিশ !’

এরকম নয় যে নদীর জল বাষ্পীভূত হয়ে যায় | আসলে আচমকা এত উষ্ণতা বেড়ে যায়‚ হিমবাহ থেকে অতি দ্রুত হারে বরফ গলতে থাকে | এতটাই জলস্রোত বৃদ্ধি পায়‚ যে জল প্রবাহিত হওয়ার অভিমুখ পাল্টে যায় | আর এদিকে জলের যোগান না পেয়ে শুকিয়ে খটখটে ধুলোর চর স্লিমস নদী |

যে স্লিমস নদী কোনও কোনও জায়গায় ১৫০ মিটার অবধি প্রশস্ত ছিল‚ সে কিনা অদৃশ্য হয়ে গেল মাত্র চার দিনে | এখন কাস্কাওয়ালশ হিমবাহ-র তুষার গলে উৎপন্ন জল প্রবাহিত হয় গাল্ফ অফ আলাস্কার দিকে | স্লিমস নদী থেকে প্রায় হাজার মাইল বিপরীতে |

সাধে কি আর প্রবাদে বলে নদীর এ পাড় কহে ছাড়িয়া নিঃশ্বাস‚ ও পাড়েতে সর্বসুখ আমার বিশ্বাস

আরও পড়ুন:  রাখীর জন্যই হিদাসপিসের তীরে সম্রাট আলেকজান্ডারের বশ্যতা স্বীকার করেছিলেন রাজা পুরু ?
Sponsored
loading...

NO COMMENTS