মাত্র ৮ মাসের ব্যবধানে স্বামী এবং বড় ছেলেকে হারিয়েছিলেন সন্ধ্যা বসাক | উত্তরপাড়ায় ছোট সংসারে সবেধন নীলমণি ছোট ছেলে অতনুকে নিয়ে ছোট সংসার |

একাকিত্ব আর শোক কাটাতে সন্ধ্যাদেবী অনেকবার ভেবেছিলেন দত্তক নেবেন কন্যাসন্তান | কিন্তু জীবনের ঝড় সামলাতে গিয়ে তার আর হয়ে ওঠেনি |

সবটুকু দিয়ে মানুষ করেছেন ছোটছেলে অতনুকে | ছেলে আজ প্রতিষ্ঠিত কম্পিউটার ডিলার | মা স্থির করলেন এবার ছেলের জন্য পাত্রী দেখতে হবে |

পছন্দসই পাত্রী সম্বন্ধে যা শর্ত ছিল তা শুনলে চোখ কপালে উঠতে বাধ্য | সন্ধ্যা ঠিক করেছিলেন পুত্রবধূ করে ঘরে আনবেন কোনও অনাথাকে | তাঁর দত্তক নেওয়ার স্বপ্ন সফল হয়নি | কিন্তু এ বার আর দত্তক নয় | একেবারে সংসারের সদস্য করে আনলেন অনাথাকে | উত্তরপাড়ায় মহিলাদের হোমের সুপারের সঙ্গে কথা বললেন সন্ধ্যা |

সব শুনে সন্ধ্যাকে হোমের সুপার শীলা কুণ্ডু আলাপ করিয়ে দিলেন যমুনার সঙ্গে | কোনও এক সময়ে মেদিনীপুরের শিশুকল্যাণ দফতর থেকে উত্তরপাড়ার হোমে এসেছিলেন যমুনা | জন্ম থেকে অনাথিনী | সরকারি হোমে থেকে লেখাপড়ার পাশাপাশি শিখেছেন সেলাই | দুর্দান্ত হাত এম্ব্রয়ডারির |

যমুনাকে মনে ধরল সন্ধ্যার | মায়ের স্বপ্ন পূরণে অনাথাকে বিয়ে করতে রাজি হয়ে যান অতনু | তিনি বার কয়েক কথা বলেন যমুনার সঙ্গে | মিয়াঁ বিবি যখন রাজি তখন শুধু দিনক্ষণ দেখার পালা |

অবশেষে এক ফাল্গুনী সন্ধ্যায় অতনু-যমুনার চার হাত এক হয়ে গেল | কন্যা সম্প্রদান করলেন হোমের সুপার শীলা কুণ্ডু | রাজ্য শিশু অধিকার রক্ষা কমিটির তরফে যমুনার বিয়েতে সাজিয়ে দেওয়া হয়েছে তত্ত্ব | শীলা নিজে দাঁড়িয়ে পালন করেছেন সব রীতি | আইবুড়ো ভাত‚ দধি মঙ্গল‚ গায়ে হলুদ‚ কোথাও কোনও ত্রুটি রাখা হয়নি |

বিভিন্ন সংস্থার তরফে যমুনাকে বিয়েতে উপহার দেওয়া হয়েছে এম্ব্রয়ডারির মেশিন‚ নগদ টাকা‚ আরও অনেক কিছু | যাতে বাড়িতে বসে সেলাইয়ের কাজ করতে পারেন যমুনা |

জন্ম থেকেই নিজেকে অনাথ বলে জেনেছেন যে যমুনা‚ তিনি ২৫ বছর বয়সে প্রথমবার নিজের ঘর পেলেন | উত্তরপাড়ার সরকারি হোম এখন তাঁর বাপের বাড়ি | সেখান থেকে শিকড় উপড়ে যমুন দুধে আলতায় পা রেখেছেন লেক টাউনের শ্বশুরবাড়িতে | খুব ইচ্ছে পুরী যাবেন মধুচন্দ্রিমায় | মুখ ফুটে আব্দার করবেন নতুন বরের কাছে |

এরকমই মধু-মুহূর্তের স্রোতেই ভরে থাকুক যমুনার জীবনের নতুন খাত |

আরও পড়ুন:  ছিলেন ক্রিকেটারের রহস্যময় সঙ্গিনী‚ হয়ে গেলেন বোন !

NO COMMENTS