সাইটে গিয়ে ঠিকে শ্রমিক অপলক নয়নে দেখতেন | কত সম্মান সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের | যদি তাঁর সন্তানদের মধ্যে কেউ একজন যেতে পারে ওই উচ্চতায়

এটা ছিল অতীত | সেই শ্রমিক এখন ভাবতে পারছেন না‚ একজন নয়‚ তাঁর দু দুজন সন্তানের সামনে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার হাতছানি | সন্তানগর্বে গর্বিত বেদমণি গুপ্তা | গ্রাম থেকে মুম্বই শহরে এসে জীবন সংগ্রাম করে টিকে থাকা এক ঠিকে শ্রমিক |

সংসারের জন্য উদয়াস্ত পরিশ্রম করে গেছেন বেদমণি | তিনি সামলেছেন বাইরে | স্ত্রী রাধিকা ছিলেন ঘরের খুঁটি | দক্ষ হাতে ধরেছিলেন সংসারের হাল | যাতে তাঁর সন্তানদের লেখাপড়া ভেসে না যায় |

বেদমণি-রাধিকার পাঁচ সন্তান | সবথেকে ছোটটি একমাত্র কন্যা | বিএসসি ফাইনাল ইয়ারে পড়ছে | বড় ছেলে ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট | মেজো ছেলে আই টি প্রফেশনাল | সেজো আর ন ছেলে যমজ | বিপিন আর বিনয় | সান্তাক্রুজের বস্তি থেকে পানভেল অবধি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ অবধি যেতে করতে রোজ সময় লাগে ৪ ঘণ্টা | তাতেও একদিনের জন্যেও একটাও ক্লাস মিস করেনি দুই ভাই | রোজ গড়ে চারঘণ্টা সময় রাস্তাতেই কেটে যেত তাঁদের |

যমজ তো | বিপিন-বিনয়ের চেহারায় মিল বেশ | ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স শেষে চূড়ান্ত ফলপ্রকাশে দেখা গেল সব শাখার মধ্যে প্রথম হয়েছেন বিপিন | কিছু নম্বর কম পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন ভাই‚ বিনয় | চেহারার পরে এ বার অদ্ভূত সাদৃশ্য দুজনের চেহারাতেও |

আপাতত দুজনেই এম.টেক করতে চান | তারপরে লক্ষ্য ভাল চাকরি | বেতনের প্রথম টাকায় বস্তি ছেড়ে অন্য বাড়িতে যেতে চান দুজনে | ভদ্রস্থ একটা ঠিকানা | যেখানে সবাই মিলে থাকা যাবে হাত পা ছড়িয়ে | থাকবে আলাদা রান্নাঘর আর শৌচালয় | আর থাকবে বাবা মায়ের জন্য আলাদা একটা ঘর |

যে দুই সেনাপতির জন্য জীবনযুদ্ধে জয়লাভ‚ এভাবেই তাঁদের সম্মানিত করতে চান দুই সেনানী‚ বিপিন-বিনয় |

আরও পড়ুন:  হাসপাতালে ভর্তি করা হল টালিগঞ্জের এই জনপ্রিয় অভিনেত্রীকে
- Might Interest You

NO COMMENTS