আলোর উৎসব দীপাবলি তো প্রায় দোড়গোড়ায় | পরিবার পরিজন এবং বন্ধুদের সঙ্গে এই উৎসব পালন করতে কে না ভালোবাসে ! কিন্তু দীপাবলি যাতে নিরাপদ হয় সেই দিকেও কিন্তু খেয়াল রাখাটা অত্যন্ত জরুরী | আজকে রইলো নিরাপদ থাকার কয়েকটা টিপ্স |

) পোশাক : কালীপুজো এবং দীপাবলিতে বাচ্চা সহ বড়রা অনেকেই বাজি ফাটাতে ভালোবাসে | আগুন লেগে যে কোন ধরণের দুর্ঘটানা এড়াতে সুতির পোশাক পরাটা খুব জরুরী | বাজি পোড়ানোর সময় কোনমতেই সিন্থেটিক কাপড়ের তৈরি পোশাক পরবেন না |

) বাজি-র কোয়ালিটি পরীক্ষা করে নিন : বাজি সবসময় লিগ্যাল ম্যানুফ্যাকচারের কাছ থেকে ক্রয় করুন | বাজি পোড়ানোর আগে নির্দেশ ভালো করে দেখে নিন | ভালো জাতের বাজি ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনার রিস্ক অনেকটাই কমিয়ে দেয় |

) বাচ্চাদের ওপর নজর রাখুন : বাজি ফাটানোর সময় অবশ্যই বাচ্চাদের সঙ্গে বড় একজন কারুর থাকটা খুব জরুরী | একই সঙ্গে বাজি ফাটানোর আগে বাচ্চাকে সঠিক নির্দেশ দিন বা কীভাবে বাজি পোড়ানো উচিত তা দেখিয়ে দিন | বাজি ফাটানোর সময় বাচ্চার ওপর নজর রাখুন |

) অগ্নি নির্বাপক হাতের কাছে রাখুন : যেখানে বাজি পোড়াচ্ছেন তার কাছাকাছিfire extinguisher থাকাটা খুব জরুরী | অন্তত হাতের কাছে এক বড় বালতি জল রাখুন | হঠাৎ আগুন লেগে গেলে এই এক বালতি জল কিন্তু খুব কাজে দেবে |

) বদ্ধ জায়গায় বাজি ফাটাবেন না : ঘরের মধ্যে বা কোন বন্ধ জায়গাতে কিছুতেই বাজি ফাটাবেন না | সব সময় খোলা জায়গাতে বাজি ফাটান | বন্ধ জায়গায় আগুন লাগার চান্স বহু গুণ বেড়ে যায় |

) হাতের কাছে ফার্স্ট এইড বক্স রাখুন : অগ্নি নির্বাপকের মতোই হাতের কাছে একটা ফার্স্ট এইড বক্স রাখাটাও কিন্তু ভীষণ জরুরী | অল্প বিস্তর আঘাত বা পুড়ে গেলে এটা খুব কাজে আসবে |

) বাজি পোড়ানোর পর সঠিক জায়গায় তা ফেলুন : ফুলঝুরি‚ তুবড়ি‚ চরকি বা অন্য যে কোনধরণের বাজি জ্বালানোর পর তার অবশেষ সঠিক জায়গায় ফেলুন | এক বালতি জলের মধ্যে তা ফেলে দিতে পারেন বা একবালতি বালিও রাখতে পারেন | অবশিষ্ট জ্বলন্ত বাজির অংশ বালিতে ঢুকিয়ে দিন |

) মোমবাতি‚ প্রদীপ জ্বালানোর সময় সাবধনতা অবলম্বন করুন : মোমবাতি আর প্রদীপ ছাড়া কালীপুজো আর দীপাবলি কল্পনাই করা যায় না | অলক্ষ্মীকে তাড়াতে ঘরের কোণায় আমরা প্রদীপ বা মোমবাতি লাগাই | কিন্তু দেখবেন জলন্ত মোমবাতি বা প্রদীপের কাছে যেন পর্দা না থাকে | বা এমন কোনো জিনিস ও যেন না থাকে যা থেকে সহজে আগুন লেগে যেতে পারে |

) পোষ্য প্রাণীদের ওপর নজর রাখুন : পোষ্য প্রাণীদের আমরা পরিবারের অংশ হিসেবেই দেখি | কিন্তু কালীপুজো আর দীপাবলির সময়টা ওদের জন্য বেশ ভীতিজনক হতে পারে | বাজি ফাটানোর জোর আওয়াজ থেকে ওদের যতটা পারবেন দূরে রাখুন | একই সঙ্গে নজর রাখুন যাতে সে আগুন বা বাজি পোড়ানোর সময় তার খুব কাছাকাছি না চলে যায় |

১০) বাজি পোড়ানোর সময় সংবেদনশীলতা দেখান : উৎসব উদযাপন করার সময় সংবেদনশীলতা দেখানোটা খুব জরুরী | জোরে আওয়াজ হয় এমন বাজি ফাটাবেন না | এর ফলে আপনার পড়শিরা বিরক্ত বোধ করতে পারে | এছাড়াও রুগী এবং বয়স্কদের কাছাকাছি বাজি না পোড়ানোই ভালো |

১১) বাজির বিষাক্ত ধোঁয়া থেকে নিজে বাঁচুন অন্যকে বাঁচান : বাজির ধোঁয়া শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক হতে পারে | তাই যতটা পারবেন বাজি না পোড়ানোর চেষ্টা করুন | বা ওই ধরণের বাজি পোড়ান যার থেকে কম ধোঁয়া বেরোয় | নেহাত যদি বাজি ফাটাতেই হয় তাহলে নাকে কাপড় বেঁধে রাখুন বা মাস্ক ব্যবহার করুন |

আরও পড়ুন:  শারদ-সন্ধ্যায় হয়ে উঠুন কাজলনয়না হরিণী

NO COMMENTS