রামায়ণের কুম্ভকর্ণ ছ‘ মাস ঘুমোতেন | ছ‘ মাস জেগে থাকতেন | ভিয়েতনামের কৃষক থাই গকের কাছে জীবন এখন কুম্ভকর্ণের এক বছরের এক অর্ধের মতো | অর্থাৎ তাঁর জীবনে ঘুম নেই | গত ৪৪ বছর ধরে ঘুম কাকে বলে ভুলে গেছেন তিনি |  তারপরেও সম্পূর্ণ সুস্থ ৭৫ বছরের এই বৃদ্ধ | চিকিৎসকরা ধরতে পারেননি তাঁর বিনাঘুমের রহস্য |

১৯৭৩ সালে একবার জ্বর হয় থাইয়ের | তখন তিনি ৩১ বছরের যুবক | জ্বর সেরে যায় বটে | তবে তাঁর জীবন থেকে বিদায় নেয় ঘুম | ওই বছরের পর থেকে এক মুহূর্তের জন্যেও এক হয়নি দুচোখের পাতা |

থাই কোনও রেকর্ড করতে ময়দানে নামেননি | কোনও গবেষণার গিনিপিগও নন | তিনি একান্তই ঘুমোতে চান | ঘুমকে আবাহন করতে ধ্যান করেছেন | টোটকা চেষ্টা করেছেন | এমনকী মদ্যপানও বাদ থাকেনি | কিন্তু সব বিফলে গেছে | তাঁর চোখে ঘুমের মাসি ঘুমের পিসি এসে বসেনি |  

না ঘুমিয়ে কিন্তু একটুও শ্রান্ত অবসন্ন থাকেন না থাই | কাঁধে-পিঠে করে কয়েক মণ ওজনের চালের বস্তা বইতে পারেন দীর্ঘপথ | চিকিৎসকরা পরীক্ষা করেও কোনও অসুখ ধরতে পারেননি | একে ইনসমনিয়া বা অনিদ্রা রোগ বলবেন কি না তাতেও নিশ্চিত নন চিকিৎসকরা | তাঁদের চোখের সামনেই চিকিৎসা শাস্ত্রের বিস্ময় হয়ে বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ভিয়েতনামের কুয়াং নাম প্রদেশের ট্রুং হা গ্রামের নিদ্রাহীন চাষি থাই গক |

আরও পড়ুন:  ভাইদের মৃতদেহ খেয়ে জীবনধারণ করে বাবার হাড় থেকে পাশার ঘুঁটি বানিয়ে প্রতিশোধের খেলা খেলতে থাকেন শকুনি

NO COMMENTS