নাম তাঁর রিপুদমন হলে কী হবে ! এই মহরাজা তাঁর প্রথম জীবনে কোনওদিন রিপুকে বশে আনতে পারেননি | বা চেষ্টা করেননি | বিশেষ করে‚ ষড় রিপুর প্রথমটির প্রকোপে বড়ই কাতর ছিলেন তিনি |

ব্রিটিশ শাসনে এক রাজন্য প্রদেশ ছিল পঞ্জাবের নভ | সেখানে রাজবংশে জন্ম রিপুদমনের‚ ১৮৮৩ খ্রিস্টাব্দের ৪ মার্চ | বাবা মহারাজা হীরা সিং | মা যশমের কাউর | রিপুদমন ছিলেন বাবার একমাত্র উত্তরাধিকারী | সিংহাসনে আরোহণ করেন ১৯১১ সালে |

তার দশ বছর আগেই সম্পন্ন হয়েছে রিপুদমনের প্রথম বিয়ে | প্রথমা স্ত্রী ছিলেন পঞ্জাবের এক অভিজাত বংশের কন্যা জগদীশ কৌর | রাজা হওয়ার পরে রিপুদমনের জীবনে আসেন দ্বিতীয় স্ত্রী‚ সরোজিনী দেবী | দুজনের বিয়ে হয় ১৯১৮ সালে | এরপর ১৯২৩ সালে তৃতীয় বিয়ে | এবার আর অভিজাত কোনও কন্যা নয় | সাধারণ পরিবারের মেয়ে গুরুশরণ কৌর | গুরুশরণের বয়স তখন মাত্র ১৯ বছর | আর রাজা রিপুদমন ৪০ বছর বয়সী |

এ তো গেল রাজার তিন মহিষী | এর সঙ্গে রিপুদমনের অন্তরমহলে ছিল অগণিত নারী | তিনি পছন্দ করতেন কুমারী নারীসঙ্গ | চোখে পড়ে পছন্দ হলেই শিকারকে হাজির করা হতো রাজার কাছে | ফূর্তি হয়ে গেলে ছুড়ে ফেলে দিতেন ছিবড়ে করে |

একবার যুবরাজ রিপুদমনের নজর পড়ল রূপসী বিদুষী প্রীতম কৌরের উপর | রাজসভার এক অফিসারের কন্যা প্রীতম | প্রাসাদ থেকে বিয়ের সম্বন্ধের প্রস্তাব পাঠানো হল | কিন্তু প্রীতম বেঁকে বসলেন | তিনি কিছুতেই কামুক যুবরাজকে বিয়ে করবেন না | মেয়ের সিদ্ধান্তে সম্মত হলেন প্রীতমের বাবা মাও | মেয়েকে নিয়ে পালাতে গেলেন দুজনে |

কিন্তু তিনজনে ধরা পড়ে গেলেন | পালাতে পারলেন না | বন্দি করে রাজ পেয়াদারা তাঁদের ঢুকিয়ে দিল কারাগারে |

রিপুদমন করলেন কী‚ এক অপরাধীর ছদ্মবেশে থাকতে লাগলেন কারাগারে‚ প্রীতমের পাশের ঘরে | যুবরাজের নির্দেশে প্রীতমে ঘরে কয়েকটা সাপ ছেড়ে দেওয়া হল | ভয়ে চিৎকার করে উঠলেন প্রীতম |

এরপর সিনেমায় যেমন হয় | সাহায্য করতে গেলেন ছদ্মদেশী রিপুদমন | সাপগুলোকে মেরে ফেললেন | সাধিত হল তাঁর আসল উদ্দেশ্যও | ভয়ে তাঁকে জড়িয়ে ধরলেন প্রীতম | সেই ঘনিষ্ঠতার সুযোগে প্রীতমকে ব্ল্যাকমেল করা হতে লাগল | চরিত্রহানির ভয়ে প্রীতম বাধ্য হয়ে রাজি হলেন রিপুদমনকে বিয়ে করতে |

কিন্তু পাশার ছক তো উল্টে গেছে | রিপুদমন তাঁকে বিয়ে তো করলেনই না | বরং সম্ভোগের পরে টোকা মেরে ফেলে দিলেন | লজ্জার অন্ধকারে হারিয়ে গেলেন প্রীতম কৌর‚ তাঁর পরিবার |

অথচ এই রিপুদমনের অমূল পরিবর্তন হয়ে গিয়েছিল সময়ের সঙ্গে | ১৯১৯ সালের জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড চোখ খুলে দিল তাঁর | ব্রিটিশের প্রতি সব আস্থা হারিয়ে ফেললেন | তিনি হয়ে গেলেন ব্রিটিশ বিরোধী | কিন্তু রিপুদমনের দূর সম্পর্কের পরিজন পাতিয়ালার মহারাজ ভূপিন্দর সিং রয়ে গেলেন ব্রিটিশ-ভক্ত হয়েই |

এর ফলে মহারাজা রিপুদমন হয়ে গেলেন ব্রিটিশদের বিরাগভাজন | ১৯২৩ সালে তাঁকে সিংহাসনচ্যুত করে ব্রিটিশ সরকার | নির্বাসনে পাঠানো হয় দেরাদুনে | সে যুগে তাঁর বার্ষিক ভাতা নির্ধারিত হয় ৩ লক্ষ টাকা |

নির্বাসিত হয়েও রিপুদমন ফিরে আসার চেষ্টা করে যেতে থাকেন | সেটা বন্ধ করার জন্য ব্রিটিশ সরকার রিপুদমনের ছেলে প্রতাপ সিং-কে বসায় সিংহাসনে | তিনি ছিলেন রিপুদমনের দ্বিতীয়া স্ত্রী সরোজিনী দেবীর ছেলে |

ওদিকে রিপুদমনের বার্ষিক ভাতা কমিয়ে করে দেওয়া হয় ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা | দেরাদুন থেকে স্থানান্তরিত হন মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সির কোদাইকানালে | তবে ক্রমশ রাজধর্মের প্রতি মোহচ্যুত হয়ে পড়েন রিপুদমন | ১৯২৭ সালে তিনি গ্রহণ করেন খালসা ব্রত | অতীতের নৃপতি হয়ে যান বিপ্লবী | নতুন নাম হয় গুরুচরণ সিং | ১৯৪২ সালে কোদাইকানালে আমৃত্যু এটাই ছিল তাঁর পরিচয় |

রাজ অলিন্দের আরও কালিমা : ২৯৩০ টি হিরের দুর্মূল্য কণ্ঠহার‚ ২০ টি রোলসরয়েস থেকে ৩৩২ জন যৌনদাসী…বিলাসব্যসনের আর এক নাম মহারাজা ভূপিন্দর সিং http://banglalive.com/indias-kinkiest-maharaja/

আরও পড়ুন:  স্বামীর সঙ্গে একইদিনে জন্ম...ছিলেন স্বামীর তুতো বোন...সিদ্ধার্থ-পত্নী যশোধরাকে ঘিরে অজানা কথা

পরকীয়ার মহিমা ! প্রেমিকের সঙ্গে সংসার পেতে বিবাহিতা রাজকন্যা হয়ে গেলেন ঘুঁটে কুড়ুনি http://banglalive.com/from-riches-to-rags-2/

- Might Interest You

NO COMMENTS