বব হলম্যানের (Bob Holman) কবিতা

    0
    143
    ব্ব হলম্যান
    আমেরিকান কবি ও পৃথিবীর ভাষা নিয়ে গবেষনামূলক সাহিত্যের কাজ করেন। ২০০৮ সালে কলকাতায় এসেছিলেন। মানুষের মুখের ভাষায় কবিতা লেখেন।

    (বব হলম্যানের কলকাতা জার্নাল-এর এই অংশটি অনুবাদ করা হয়েছে; পুরো জার্নালটি উড়ালপুলের ইংরাজি বিভাগে পাঠ করতে পারবেন।)

    কলকাতা ইউনিভার্সিটিতে নেমেছে বরষা
    (Downpour Kolkata University)

    অনুবাদ: নূপুর লাহিড়ী

    দালানের ধূলিধূসর বিষণ্ণ পিঙ্গল দেওয়ালে
    ঝোলে শতাব্দীর বিদ্বান পণ্ডিতদের ফোটোগ্রাফ
    আন্দোলিত দরোজা উপাচার্যের ঘরে
    নেমে এল মুষলধারে অমূল্য ধারা
    অস্পষ্ট কুলকুচোর ছাঁটে লেখা
    নিভাও পাইপ— ধরে থাকো । এবার
    বন্যা উঠছে পায়ের তলা থেকে বেয়ে বেয়ে ওপরে
    পরো চপ্পল, ভাগ্যিস উঁচুতে তোলা ঘাগরা
    স্নাতক ছাত্রের আদিম আচরণ
    ছায়া নামে হঠাৎ–দাপিয়ে ওঠে প্লাবন
    সদ্যোস্নাত বিশ্বের পাঠশালা, পানসি চলে— দরজা খুলব ?
    ট্যাকসি? জলস্রোত মানে না বাধা
    সমস্ত ভবন থেকে চুঁইয়ে পড়ে জল
    ইতিহাস, সাহিত্য
    বিজ্ঞান, গণিত
    প্রাক ধ্বনির বৃষ্টিবিন্দু, গ্যালন গ্যালন ডুবোজলে গুপ্তধন

    দুই হাতের তালি
    (Palm Poem)

    বাজল তালি এক হাতে
    একই তালি বাজল
    আবার আরেক হাতে ।

    সম্পর্ক
    (Relationship)

    সম্পর্ক বজায় রাখতে
    আমাদের হবে না আর কোনও দিন দেখা ।

    শেষ দিন

    আমরা এখন বসে আছি ক্রিস (Chris) আর এডের (Ed) মাঝখানে শেষ সারিতে। সুবোধ ওর শেষ কবিতা পড়ছে।
    কালীঘাটের ফুলগুলো সব ফুরিয়ে গেছে। আমি সেই বিখ্যাত ফলক তুলে দিই মেজরের হাতে, বসি ডাঃ নূপুরের পাশে।
    বাংলা কবিতা পাঠের আসর, লোকগুলো বারবার ঢোকে আর বেরোয়, কথা বলে মোবাইলে। কবিতা ওড়ে।
    ডাঃ নূপুর ডেকেছে তার বিখ্যাত মাছভাজা খাওয়ার জন্যে। আমি আর গৌতম ভাঙ আনতে বেরোই।
    যেখানে কবিতাগুলো নিয়ে পড়তে শুরু করে। তবে এ সবই নাচের অঙ্গ। ইউনিভার্সিটির উল্টো ফুটে হাজার হাজার বইয়ের স্টল, আট ফুট চওড়া সামনে একটা ডেস্ক, যেখানে বসে বেচনদার।

    কলকাতার শেষ রাত
    (Last Night in Kolkata)

    লোরকার কথা বলি সুনীলের সঙ্গে
    সুবোধ-অনুবাদ, প্রকাশ হবে?
    রাম- দৈনিক? প্রথম ছবি, বেনারস
    হাওয়া বইছে না নীল রাত
    অ্যালেনের শেষ রাতের উদ্দাম,
    উদ্দাম ছিল ঠিকই
    সুনীলের সঙ্গে, আমিও যেন ছিলাম !
    অ্যালেন নিজের নাম লিখেছিল কবিতায়
    বব হলম্যানের জন্য এতো বড্ড বাড়াবাড়ি
    যে খূঁজে পায় নিজের আস্তানা
    লেখে তার নিজস্ব পয়ার।

    প্রথম রাত্রির বিবরণ
    Opening night details
    Playing the cotton picking instrument
    Introduce the characters
    Party at Dr N’s.

    তুলোধোনা যন্ত্রে টুং টাং
    চরিত্র পরিচয়
    ডা. নূপুরের বাড়ির পার্টি

    আজ সন্ধেবেলায় আমাদের পৃষ্ঠপোষক, প্রেরণা যোগানদায়িনী, কবি–মনরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. নূপুরের আমন্ত্রণ।
    যে সময় ভাগ করে নিউ জার্সি আর তার কলকাতার সুন্দর আস্তানার মাঝে।
    গৌতম আর আমি যাই নেশার সাপ্লাই আনতে। গৌতম আর ড্রাইভার বাপন এত দিন এক সঙ্গে থেকে ওরা আর ওদের পুরোনো চেকার গাড়ি মিশে এক হয়ে গেছে। কলকাতার অলিগলি, মাদকতা পেড়িয়ে যখন আমরা পৌঁছলাম নূপুরের বাড়ি, পার্টি তখন জমজমাট। সুনীল মধ্যমণি, ইউসেফ ধারে পাশে ঘুরছে আর ডা. নূপুর গাইছে তার কবিতা। ভোজ, দারুণ গন্ধ, হায় যেখানে সুনীল আগে থেকেই জাজ হয়ে বসে-বলতেই হবে কী আনন্দ! মদ বয়ে যায়, সিগারেটের ধোঁয়া ঘন আঁট ।

    কেনাকাটা আর মধ্যাহ্ন ভোজন নূপুরের সঙ্গে ।

    এই ভবিষ্যত আমি সৃষ্টি করিনি
    (It’s A Future I’d Have Never Invented)

    সকলের হাতে মোবাইল, একাকিত্ব?
    B F D (বিগ ফাকিং ডিল!) ‘গগ – ম্যাগগ’
    বলবো তোমাকে এই গল্প, এই কবিতা তুমি গিলবে!

    মৃত্যুর ওপর গীণসবার্গ
    (Ginsberg on Death)

    অসহ্য লাগে মৃত্যুর বড় ‘ম’ বিলাস, শেষে
    এই পড়ে পাওয়া মগজটাকেই কাজে লাগাই- অনেক শিক্ষা হয়েছে
    এর সীমা যাচাই করার তালে। সমস্যা হচ্ছে মুখের কথায় বলা

    কুকুর-ও ঘুমতে যায়
    (Even Dogs Go to Sleep)

    ওরা ঘেউ ঘেউ করে যখন তুমি ঘুমোও
    যাতে স্বপ্নে শুনতে পাও ওদের ডাক
    ওদের ডাকের সামাল দেয়
    তোমার ধ্যানের ব্যাঘাত।

    SHARE

    LEAVE A REPLY