নাথালি হান্ডাল-এর দুটি কবিতা ( Two Poems of Nathalie Handal )

    নাথালি হান্ডাল
    আমেরিকাবাসী কবি, নাটককার। জন্ম হেইতি দেশে প্যালেস্তাইন ফ্যামিলিতে। ফরাসি ও ইংরাজি ভাষায় লেখেন। নিউইয়র্কের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপনা করেন। পাঁচটি প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ।

    অনুবাদ: অনন্যা চাটার্জী

    মধ্যরাত্রের সন্ধানে (In Search of Midnight)
    -নাথালি হান্ডাল (Nathalie Handal)

    মধ্যরাত্রের মহেন্দ্রক্ষণে সে
    স্পর্শ করেছিল আমার ঠোঁট
    সম্মতি দিয়েছিলাম –
    খুলেছিল দেহের সুক্ষ আবরণ
    সম্মতি দিয়েছিলাম –
    খুলে দিয়েছিল অন্তর্বাসের
    যুগ্ম বন্ধন
    ছুঁয়েছিল উন্মুক্ত বক্ষদ্বয়
    সম্মতি দিয়েছিলাম-
    নিম্নাঙ্গের বসন খুলে
    আপাদমস্তক দেখেছিল আমায়
    এই সাদাকালো ঘরের
    অদ্ভূত আলোহীনতায়  …
    সম্মতি দিয়েছিলাম-
    জানলার ধারে রাখা
    ক্ষুদ্র পিদিম
    নিভু নিভু তখন  …
    সে আলোয় দেখেছিলাম
    সেই শহরের এক ঝলক
    যে শহরে দুজনেই বাস করি
    দুজনেরই অজান্তে

    তারপর
    সে ডেকেছিল আমার নাম ধরে
    ভ্রান্ত উচ্চারণে –
    আমি থামিয়ে দিয়ে
    প্রশ্ন করেছিলাম তাকে
    “কোনোদিন নির্বাসিত
    অথবা কারারুদ্ধ হয়েছিল কিনা
    জানতে চেয়েছিলাম
    কখনও চিঠি লিখেছিল কিনা
    সেই নারীকে
    যাকে সে কোনো এক সময়
    নিবিড় ভাবে ভালোবেসেছিল
    অথচ যার সঙ্গে দেখা হবে না
    কোনোদিনও আর ?
    সে কি মনে করে আমরা আবার
    ফিরে যেতে পারি অনায়াসে
    সেই প্রেমিকের কাছে
    যদিও সেই প্রেম
    আসবে না ফিরে দ্বিতীয়বার ?
    জিজ্ঞেস করেছিলাম
    কখনও লুটেছে কিনা
    ব্যস্ত মুদিখানা
    অথবা ছিনিয়ে নিয়েছে কিনা
    কোনো চাষীর মুখের গ্রাস
    সে কি শতসহস্র
    সমুদ্র পর্বত পার হয়েও
    ছুঁতে পারে নি দিগবলয় ?

    উত্তরে বলেছিল সে

    আমি স্বদেশে নিজের নাম
    সঠিক উচ্চারণ করিনি বলে
    রক্তাক্ত হয়েছি অনর্গল
    আমি শত্রু শিবিরে নিজের নাম
    সঠিক উচ্চারণ করিনি বলে
    পরেছি পায়ে শেকল
    নির্বাসিত হয়েছি সেদিন
    আমি গন্তব্যে পৌঁছেও
    নিজের নাম সঠিক উচ্চারণ
    করিনি বলে
    ওরা ধরিয়ে দিয়েছে
    অগুনতি খবরের কাগজ।

    আসলে, যে হৃদয় মধ্যরাত্রের
    অন্বেষণ করে
    সে যে কেবলি একটা হৃদয়
    অন্য কিছু নয়
    বাকি আর সব কিছুই
    স্থাবর থেকে যায়
    রং পাল্টায় শুধু
    পরস্পরের চাহিদা।

    নিজের ভেতরে আগন্তুক (Strangers Inside Me)
    নাথালি হান্ডাল (Nathalie Handal)

    বাইরে, শীতের মৃদু শীৎকার
    আচমকা আদ্রতা  … বিলম্বিত আঁধার
    বাইরে, অপরিচিতেরা খুঁজে চলেছে নিজেদেরকে-
    আমার কলমের শব্দহীন গতিময়তায়
    আমি রাতের আনাচে কানাচে দাঁড়িয়ে থাকি
    অপরাজিতার নীলচে বেগুনি সমাহার
    দেখার আশায়, এই শীতের কুয়াশায়।

    আমার জিভের ডগায় দাঁড়িয়ে একটা দেশ
    পৃথিবী দোলে আমার হৃদস্পন্দনের মাঝখানে
    আমার অন্তরে আছে সেই অপরিচিতেরা
    যারা অতি অনায়াসে অনুধাবন করে
    অস্বাভাবিকের অস্বাভাবিকতা –

    যারা জানে , তারা পরস্পরের বড় আপন
    যদিও অপরের দৃষ্টিতে
    তাদের এই আত্মীয়তা
    বড়ই বেমানান –
    যেন নিজেদের কাছে
    নিজেদেরই আসা বারণ।

    শব্দ গড়িয়ে পড়ে কণ্ঠনালী বেয়ে
    মখমলি নদীর মতন, বাইরে
    এক ক্ষীণ প্রতিধ্বনি
    আহবান করে চলে আমায় –
    আমি ঘুরে চলি এক মহাদেশ থেকে আরেক মহাদেশ –
    ঘুরে চলি,
    সম্পূর্ণতার আশায়।

    SHARE

    1 COMMENT

    LEAVE A REPLY