.. ফেলুদার টার্গেট অডিয়েন্সকে ভেবে করা

বিশ্ব শ্রেষ্ট পরিচালক সত্য়জিৎ রায়ের নাম জড়িয়ে রয়েছে তাঁ্র সঙ্গে | তাই প্রতি ধাপেই তাঁ্কে সাবধানে পা ফেলতে হয়্ | সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তাঁ্র “যেখানে ভ্ুতের ভয়

Banglalive: আপনার সাম্প্রতিক ছবি “যেখানে ভ্ুতের ভয়

Sandip Ray: পরিকল্পনা বলতে আমি প্রথমে একটা গোটা বড় গল্প চাইছিলাম্ | কিন্তু একটাও মনের মতো গল্প পাচ্ছিলাম না | আর সেটা পাচ্ছিলাম না বলেই একটা প্ুর্ণ দৈর্ঘ্য়ের ছবি বা ফিচার ছবির চিত্রনাট্য় হয়ে উঠেছিল না | আমি তখন ফিরে গেলাম ছোট গল্পে | কারণ এককালে আমরা টেলিভিশনে ছোট গল্প নিয়ে বেশ কিছু কাজ করেছিলাম্ | সেগুলো অত্য়ন্ত মজাদার হয়েছিল এবং ভালো ফিডব্য়াক পেয়েছিলাম্ | আমি তাই একটু অন্য়রকম কিছু একটা চাইছিলাম্ | তাই তিনটে গল্পকে একটাই প্ুর্ণ দৈর্ঘ্য়ের ছবির মধ্য়ে একটু অন্য়ভাবে দেখালাম্ | এটা একটা এক্সপেরিমেন্টের মতো | আমি চাইছিলাম না একটা ছবির মধ্য়ে একটা করে গল্প শেষ হবার পর আবার আর একটা গল্পের শুরুতে একটা টাইটেল কার্ড আসুক্ | তাই একটা কানেকশন খুঁ্জছিলাম্ | সেই জন্য়ই তারিণ্ি খুড়োর কথাটা আমার প্রথম মনে এল্ | কারণ গল্প বলিয়ে হিসেবে তারিণ্ি খুড়ো একজন জনপ্রিয় চরিত্র | তাই তারিণ্ি খুড়োর মাধ্য়মেই পরপর গল্পগুলো বলানো হয়েছে | এরফলে দর্শকও ফিচার ছবির একটা স্বাদ পেয়েছে |

Banglalive: সত্য়জিৎ রায়ের “তিন কন্য়া” কাপুরুষ মহাপুরুষ

Sandip Ray: তিনটে আলাদা গল্পকে একটা ছবির মধ্য়ে কোনওরকম ভাগ না করে টানা বলে যাওয়ার মধ্য়ে অবশ্য়ই একটা নতুনত্ব রয়েছে | আর বাচ্চাদের প্রসঙ্গে বলব, খুব বাচ্চাদের কথা ভাবলে মুশকিল হয়ে যায়্ | “যেখানে ভ্ুতের ভয়

Banglalive: এই ছবিতে সত্য়জিৎ রায়ের দুটো গল্প বাদেও শরদিন্দু বন্দ্য়োপাধ্য়ায়ের “ভ্ুত ভবিষ্য়ত

Sandip Ray: কারণ একটা রয়েছে | সেটা হল আমার ছবির বিষয় হল ভ্ুত্ | শরদিন্দু বাবুর গল্প”ভ্ুত ভবিষ্য়ত, মজাদার সং্লাপ এত enrich, এত interesting যে আমি ওই গল্পটাকে হুবহু রেখেছি | আলাদা করে কিছু বদলাইনি | আর বাবার গল্পের পাশে ভ্ুত বিষয়ক এই গল্প অত্য়ন্ত appropriate | এই কারণেই শরদিন্দুবাবুর গল্প নেওয়া |

Banglalive: “যেখানে ভ্ুতের ভয়

Sandip Ray: হ্য়াঁ, এটার খুব ভালো রেসপন্স পাওয়া যাচ্ছে | দর্শকদের ফিডব্য়াক খুব ভালো পাওয়া যাচ্ছে | আবার রিপিট ভ্য়ালুও তৈরি হচ্ছে | ভবিষ্য়তে এরকম ছোট গল্প নিয়ে কাজ করাই যেতে পারে | তবে সব সময় ভ্ুতের গল্প নাও হতে পারে |

Banglalive: “গুপি বাঘা ফিরে এলো

Sandip Ray: আমি চাই না ফেলুদার বয়স বাড়ুক্ | বাবাও একটা পয়েন্টের পর চাননি বয়স বাড়ুক্ | ফেলুদার বয়স বেশি হয়ে গেলে গল্পগুলির মজা চলে যাবে | সেক্সেত্রে প্রবলেম হবে | তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ফেলুদাকে আধুনিক করা হয়েছে | আধুনিক প্রয্ুক্তির সঙ্গে ফেলুদা পরিচিত হয়েছে | যেমন ফেলুদার নিজস্ব মোবাইল নেই, কিন্তু প্রয়োজনে সে অন্য়ের মোবাইল ব্য়বহার করে | আসলে ফেলুদাকে যে কোনও সময়ে এনে ফেলা যেতে পারে | এটা কিন্তু গোয়েন্দা ব্য়োমকেশের ক্সেত্রে সম্ভব নয়্ | কারণ ব্য়োমকেশকে একটা টাইম পিরিয়ডের মধ্য়ে রাখতে হবে |

Banglalive: আপনার জটায়ু চরিত্রে অভিনেতা পরিবর্তন হয়েছে | এখন শুনছি ফেলুদা চরিত্রে অভিনেতা সব্য়সাচ্ি চক্রবর্ত্ির বয়স বেড়ে যাওয়ার ফলে অভিনেতা আবিরকে আপনি ফেলুদা হিসেবে নির্বাচন করেছেন্?

Sandip Ray: এখনও কিছু ফাইনাল করিনি | কারণ আবির ব্য়োমকেশ করছে | যে ব্য়োমকেশ করছে সে আবার ফেলুদা করলে একটা আইডেনটিটি ক্রাইসিস হয়ে যাবে | একই লোককে দুজন গোয়েন্দার চরিত্রে ভালো লাগবে না | দর্শকেরা অযথা কনফিউজড হয়ে যাবেন্ | তবে এগসিসটিং যেসব অভিনেতা রয়েছেন তারমধ্য়ে ফেলুদা হিসেবে আবির সবচেয়ে ভালো | “যেখানে ভ্ুতের ভয়

Banglalive: নতুন ফেলুদা যদি শুরু করেন তাহলে কোনও গল্প দিয়ে শুরু করবেন্?

Sandip Ray: আমার খুব ইচ্ছে প্রথম উপন্য়াস “বাদশাহ্ি আং্টি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here