ঘামাচি থেকে রেহাই পাওয়ার ঘরোয়া টোটকা

অত্যধিক ঘাম হওয়ার ফলে গায়ে ঘামাচি বেরোয় | এটা এমন কিছু বড় সমস্যা নয় | কিন্তু তাও এর ঠিক মতো যত্ন নেওয়া উচিত | আজকে রইলো ঘামাচি সারানোর ১০ টা ঘরোয়া উপায় |

১) ওটমিল বাথ : যাদের বাড়িতে বাথ টাব আছে তারা জলে আধ কাপ ওটমিল ভিজিয়ে রাখুন | এরপর এই জলে ১৫-২০ মিনিট ডুবে থাকতে হবে | যাদের বাড়িতে বাথ টাব নেই তারা জলে ভেজানো ওটমিল হাল্কা করে ঘামাচির ওপর ঘষুন | এর ফলে ত্বক একফলিয়েট হবে এবং ত্বকের যে ছিদ্র দিয়ে ঘাম বেরোয় তা খুলে যাবে | ওটমিল লাগালে ঘামাচির চুলকানি থেকেও আরাম পাবেন |

২) অ্যালোভেরা জেল : অ্যালোভেরাতে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপ্টিক প্রপার্টি আছে | তাই এটা লাগালে খুব সহজেই ঘামাচি সেরে যাবে | এর জন্য অ্যালোভেরা পাতার একটা অংশ গাছ থেকে ছিঁড়ে নিন | এরপর সেই পাতার টুকরো থেকে সব রস বের করে নিয়ে ঘামাচির ওপর লাগান | এক দুবার লাগানোর পরেই দেখবেন লাল ভাব কমে গেছে এবং জ্বালা বা চুলকানিরও অবসান ঘটছে | যাদের বাড়িতে অ্যালোভেরার গাছ নেই তারা দোকান থেকে অ্যালোভেরা জেল কিনে এনেও কাজ চালাতে পারেন |

৩) বেসন : ছোলার বেসন এবং জল দিয়ে একটা গাঢ় পেস্ট বানান | এরপর এই পেস্ট ঘামাচির ওপর লাগান | ২০-২৫ মিনিট রাখার পর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন | এই ঘরোয়া পদ্ধোতির সাহায্যে খুব সহজেই ঘামাচির জ্বালা এবং চুলকানির হাত থেকে রেহাই পাবেন |

৪) মুলতানি মাটি : বহু যুগ ধরে ঘামাচি সারাতে  মুলতানি মাটির ব্যবহার হয় | চার চা চামচ মুলতানি মাটি নিন | গোলাপ জল দিয়ে একটা পেস্ট বানান | শরীরের যে অংশে ঘামাচি হয়েছে এই পেস্ট সেই জায়গায় লাগান | মোটামুটি তিন ঘন্টা রাখার পর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন |

৫) বেকিং সোডা : বেকিং সোডাতেও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল গুন আছে | তাই যে কোন ইনফেকশন সারাতে এটা খুব কার্যকারী | খানিকটা জলে দু চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন | একটা পরিষ্কার সুতির কাপড় ওই জলে ভিজিয়ে ঘামাচির ওপর আলতো হাতে বোলান |

৬) কাঁচা আলু : কয়েকটা আলু টুকরো করে কেটে ঘামাচির ওপর লাগান | শুকিয়ে গেলে আরো একবার লাগিয়ে নিন | খনিক্ষণ রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন | এই পদ্ধতি মেনে চললে খুব তাড়াতাড়ি ঘামাচির থেকে আরাম পাবেন |

৭) তরমুজ : গরমকালে সহজেই তরমুজ পাওয়া যায় | খানিকটা তরমুজ নিন | তার থেকে বিচি ছাড়িয়ে তরমুজের পাল্প বানান | এটা ঘামাচির ওপর লাগালে সঙ্গে সঙ্গে আরাম পাবেন |

৮) আদা : খানিকটা আদা গ্রেট করে নিন | এই গ্রেট করা আদা জলের মধ্যে দিয়ে ফুটিয়ে নিন | জল ঠান্ডা করে একটা পরিস্কার সুতির কাপড় এই জলে ভিজিয়ে ঘামাচির ওপর লাগান |

৯) কর্পুর : কর্পুরের টুকরো নিয়ে তার পাউডার বানান | এইবার এই পাউডারে কয়েক ফোঁটা নিম তেল মেশান | নিম পাতাও বেটে নিয়ে মেশাতে পারেন | এই পেস্ট এবার ঘামাচির ওপর লাগান | দ্রুত আরাম পাবেন |

১০) চন্দন এবং ধনে পাতা : চন্দন পাউডার বা চন্দন বাটাতে ধনে পাতা বেটে মেশাতে হবে | এই পেস্ট এবার ঘামাচির ওপর লাগান | শুকিয়ে যাওয়া অবধি লাগিয়ে রাখতে হবে | শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে নিন | ধনে পাতায় অ্যান্টি সেপ্টিক গুন আছে | আর চন্দন জ্বালা আর চুলকানি কমাতে সাহায্য করে |

ওপরের ঘরোয়া পদ্ধতি ছাড়াও ঘামাচিতে বরফ‚ মধু‚ লেবুর রস‚ শসার রস‚ পাকা পেঁপে‚ ট্যালকম পাউডার বা ল্যাভেন্ডার তেলের মধ্যে যে কোন একটা লাগাতে পারেন |এছাড়াও যতটা পারবেন সুতির পোশাক পরুন | বেশি পরিমাণে জল পান করুন | দিনে অন্তত দুবার ভালো করে চান করুন |

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here