আটশো বছরের প্রাচীন ইতিহাসের গন্ধমাখা ভবন নতুন সূর্যের আলো দেখছে চল্লিশ বছর পরে

114

সুদীর্ঘ আট শতক আগে কিছু ঘরছাড়া নতুন ভুঁই খুঁজে পেয়েছিল ভারতের পশ্চিম উপকূলে | এখন সে জায়গাকে আমরা চিনি কেরল বলে | ঈশ্বরের নিজের দেশে নিজেদের উপাসনার জন্য এক চিলতে জায়গা বানাল তারা | কিন্তু ঈশ্বর বোধহয় এক জায়গায় থিতু হওয়া তাঁদের জন্য বরাদ্দ করেননি | বিশাল বিশ্বে তাঁরা আজন্মকাল ঠাঁইনাড়া | কেরল তথা ভারতের সব অংশ থেকেই ধীরে ধীরে পাততাড়ি গুটিয়েছেন তাঁরা | একদিন লোকাভাবে সেই উপাসনালয়ের দরজাতেও তালা পড়ল | চার দশক পরে সেই তালা খুলল অবশেষে | কেরলের এর্নাকুলামের কাড়াভুমবাগামের সিনাগগের দরজার | প্রতিষ্ঠার বর্ষপূর্তিতেই আবার নতুন সূর্যের আলো প্রবেশ করল ইহুদিদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই উপাসনালয়ে | 

এই উপলক্ষে ইজরায়েল থেকে আনা হয়েছে ইহুদিদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ সেরেফ তোরাহ-র হাতে লেখা একটি সংস্করণ | ইহুদিদের ধর্মে তোরাহ হল সেই বই যেখানে মোজেস-কে দেওয়া ঈশ্বরের আদেশ হিব্রু ভাষায় লিপিবদ্ধ রয়েছে |

কেরলে অন্তত আটটি সিনাগগ আছে | প্রায় সব ক্ষেত্রেই পর্যটক আছে | কিন্তু প্রার্থনা করার মুখের অভাব | এর্নাকুলামের এই সিনাগগেও পর্যটক-দর্শন দুর্লভ ছিল না | কিন্তু অর্থাভাবে ১৯৭২-এর পর থেকে বন্ধ হয়ে যায় উপাসনা-সহ অন্যান্য কাজ | আবার সেই দরজা খুলে গেল | শখের পর্যটকের মুগ্ধ-শব্দের পাশাপাশি এ বার চার দেওয়ালের ভিতরে শোনা যাবে সর্বশক্তিমান পিতা আব্রাহ্যামের উদ্দেশে ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের প্রার্থনাও | আশার আলো দেখছেন স্থানীয় মানুষজন | 

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.