সহজ কয়েকটি পদ্ধতিতে বাড়িতেই করে ফেলুন ওয়াক্সিং

শরীরে অবাঞ্ছিত লোম কার ভাললাগে? আর এই লোম দূর করাও এক ঝক্কির কাজ। পার্লারে গিয়ে অযথা টাকা খরচ না করে এবার হাতের কাছে থাকা কিছু ঘরোয়া সামগ্রী দিয়েই করে নিতে পারেন ওয়াক্সিং।

* সসপ্যানে কিছুটা জল দিন। এবার জলে আধ কাপ চিনি ও একটি লেবুর রস দিয়ে নাড়তে থাকুন। নাড়তে থাকুন যতক্ষণ না চিনি ক্যারামেলাইজড হয়ে ওঠে। এরপর ফুটে উঠলে নামিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটিকে খানিকটা ঠাণ্ডা করে নিতে হবে। ঈষৎ-উষ্ণ অবস্থায় একটি কাঠের চামচের পিছন দিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিতে হবে। এবার একটি পাতলা সুতি বা লিনেন কাপড় তার উপরে বসিয়ে লোমকূপের উল্টো দিক থেকে টান দিন। এইভাবে ঘরে বসেই অবাঞ্ছিত লোম দূর করা সম্ভব।

* অর্ধেক চা-চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার, ডিমের সাদা অংশ এবং ১ টেবিল চামচ চিনি একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। এই মিশ্রণও অবাঞ্ছিত লোম তোলার কাজে বিশেষ উপযোগী। মূলত মুখের অবাঞ্ছিত লোম দূর করতে এই মিশ্রণটি বিশেষভাবে সাহায্য করে। মিশ্রণটিকে ত্বকে লাগিয়ে বেশ খানিকক্ষণ রেখে দিতে হবে। শুকিয়ে গেলে টেনে উঠিয়ে ফেলুন।

* একটি সসপ্যানে সমপরিমাণ চিনি এবং মধু নিয়ে গরম করে নিতে হবে। এরপর তাতে ১ টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন। মিশ্রণটি ততক্ষণ পর্যন্ত নাড়তে থাকুন যতক্ষণ না তা আঠালো অবস্থায় আসে। এবার ঠিক একইভাবে মিশ্রণটি ঈষৎ গরম থাকা অবস্থায়  ত্বকে লাগিয়ে সুতি বা লিনেন কাপড় বসিয়ে উল্টো দিক থেকে টেনে উঠিয়ে ফেলুন।

* অনেক সময়ে মুখের ত্বকেও অবাঞ্ছিত লোম দেখা যায়, যেমন ঠোঁটের উপরিভাগ এবং থুতনির অংশ। সেক্ষেত্রে হলুদ গুঁড়ো এবং দুধ সমপরিমাণে মিশিয়ে নিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করে নিয়ে তা রোমকূপের ওপর লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন। টানা ৪ সপ্তাহ এই পদ্ধতি ব্যবহার করতে হবে।

ওয়াক্সিং-এর পর অবশ্যই হাত এবং পা-য়ের যত্ন নিতে হবে। লোম তুলে ফেলার পর শরীরের ওই অংশটি লাল হয়ে যায়। এমন হলে, সেইস্থানে কিছুক্ষণ বরফ লাগিয়ে নিলে আরাম পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ট্যালকম পাউডারও লাগিয়ে নেওয়া যেতে পারে। ওয়াক্স করার পরপরই রোদে না বেরোনোই ভাল। একান্ত বেরোলেও শরীরের ওই অংশে রোদ যেন না লাগে সেই দিকে নজর দিতে হবে। ওয়াক্সিংয়ের পর ত্বকে অ্যালার্জি বা র‍্যাশের সমস্যা যদি বিরাট আকার ধারন করে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here