জীবনভর তাকিয়ে থাকতেন মুখের দিকে | সে আশ কি সহজে মেটে ! তাই জীবনের পরেও যদি জীবন বলে কিছু থাকে‚ সেখানেও আকণ্ঠ পান করতে চান ওই সুন্দর মুখের সৌন্দর্য | তাই মৃত্যুর পরেও দুজনে যুগলে | পুরুষের মুখ ঘুরে আছে তাঁর প্রেয়সীর দিকে | প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার বছর ধরে | হরিয়ানার রাখিগড়ি গ্রামে এক প্রাচীন সমাধিক্ষেত্রে | যা খনন করা হয়েছিল হরপ্পা সভ্যতার সময়ে |

সম্প্রতি সেই প্রত্নতাত্বিক স্থানে খননকার্য চালিয়েছেন পুণার ডেকান কলেজের একদল গবেষক ও বিশেষজ্ঞ | অনুসন্ধানে সাহায্য করছে সিওলের ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কলেজ অফ মেডিসিন | খননের বিস্তারিত বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক পত্রিকা‚ ACB journal of Anatomy and Cell Biology-তে | 

দিল্লির ১৫০ কিমি উত্তর পশ্চিমে রাখিগড়িতে বেশ কয়েক বছর আগেই আবিষ্কৃত হয়েছে প্রত্নতাত্বিক নিদর্শন | সেসবই হরপ্পা সভ্যতার সমকালীন‚ তাও নিশ্চিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা | এই আবিষ্কারের ফলে সিন্ধু সভ্যতার দিনক্ষণও পিছিয়ে গেছে অন্তত ৫০০ বছর | এখন বলা হচ্ছে খ্রিস্টের জন্মের সাড়ে পাঁচ হাজার বছর আগে সূত্রপাত এই নদীভিত্তিক সভ্যতার | হরপ্পা সভ্যতার সমাধি এর আগেও অনেক আবিষ্কৃত হয়েছে | কিন্তু সাম্প্রতিক এই খনন বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ | কারণ এই প্রথম এমন এক হরপ্পান সমাধি দেখা গেল যেখানে যুগলকে ( নারী-পুরুষ ) কবর দেওয়া হয়েছিল | মনে করা হচ্ছে একসঙ্গেই সমাহিত হয়েছিলেন তাঁরা | ফলত বসন্ত শিণ্ডের নেতৃত্বে এই অভিনব সমাধি পুরাতাত্ত্বিকদের মধ্যে সাড়া ফেলে দিয়েছে স্বভাবতই |

কিন্তু এই যুগল সমাধির অর্থ ও তাৎপর্য কী ? এই নিয়ে ঐতিহাসিকরা এখনও সহমত হতে পারেননি | অনেকেই মনে করেন‚ সিন্ধুবাসীরা মৃত্যুর পরের জীবনেও বিশ্বাস করত | তাই সমাধিতে মাটির পাত্র পাওয়া যায় | মনে করা হয় সেখানে খাবার ও পানীয় দেওয়া হতো | এর আগে গুজরাতের লোথালে একটি সমাধিতে পাওয়া গিয়েছিল একসঙ্গে দুটি দেহর সমাধি | কিন্তু সেখানে তাঁদের লিঙ্গ পরিচয় নিয়ে ধন্ধ ছিল | নারী না পুরুষ নিশ্চিত করা যায়নি | কিন্তু রাখিগড়ির সমাধির দুটি কঙ্কালের পেলভিক অংশ পরীক্ষা করে গবেষকরা নিশ্চিত‚ দুজনের মধ্যে একজন পুরুষ ও অন্যজন নারী | তাই সিন্ধু সভ্যতার যুগলের যৌথ সমাধি বলতে এটাই প্রথম |

সমাধির দুজনেরই বয়স ছিল ২১ থেকে ৩৫ বছর | পুরুষের উচ্চতা ৫ ফিট ৬ ইঞ্চি | মহিলাতি ছিল ৫ ফিট ২ ইঞ্চির কাছাকাছি | তবে তাঁদের দুজনের কঙ্কালে কোনও আতঙ্ক বা নির্যাতনের চিহ্ন পাওয়া যায়নি | রাখিগড়িতে মোট ৬২ টি সমাধির মধ্যে একটিতেই যুগল কঙ্কাল পাওয়া গেছে | তবে বিশেষজ্ঞরা সতীদাহ বা অন্য কোনও বিশেষ রীতির সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়েছেন | মনে করা হচ্ছে‚ দুজনে একসঙ্গে বা অল্প সময়ের ব্যবধানে মারা গিয়েছিলেন | একসঙ্গেই সমাধিস্থ করা হয়েছিল |

রাখিগড়ির পাশাপাশি ভিরান্না‚ গিরাওয়াড়‚ ফারমানার বিস্তীর্ণ অংশে আবিষ্কৃত হয়েছে সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন | আজকের পাকিস্তান‚ আফগানিস্তান জুড়ে বিকশিত হয়েছিল এই নাগরিক নদীভিত্তিক সভ্যতা | হিসার জেলার রাখিগড়িতে ১৯৬৩ সালে প্রথম আবিষ্কৃত হয়েছিল সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন | ২০১৫ সালে এখানেই পাওয়া গিয়েছিল চারটি নরকঙ্কাল | সেগুলো ছিল দুজন পূর্ণবয়স্ক পুরুষের‚ একজন পূর্ণবয়স্ক নারী ও একটি শিশুর | রাখিগড়ির নিদর্শন হরপ্পা মহেঞ্জোদাড়োর অন্য প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রের থেকে অনেকটাই বড় ও সমৃদ্ধ | 

হরপ্পার সমসাময়িক বা তারও আগে অনেক ক্ষেত্রে যুগল সমাধির নিদর্শন পাওয়া গেছে | হরপ্পায় কেন এতদিন তা পাওয়া যায়নি‚ তাই নিয়ে বিস্মিত ছিলেন গবেষকরা | এ বার সেই ধন্ধের নিরসন ঘটল | ইতালির ভালদেরো গ্রামে নিওলিথিক যুগের সমাধি পাওয়া গেছে | যেখানে যুগলের একে অন্যকে জড়িয়ে আছেন | রাশিয়ার আন্দ্রোনোভোতেও আছে এমনই এক সমাধি | সেখানে দুজনে হাত ধরে আছে | গ্রিসের আলেপোত্রাইপায় ৫ হাজার ৮০০ বছরের পুরনো সমাধিতে নর নারীর কঙ্কালের হাত ও পা ইন্টারলকড | এছাড়া ভারতে গাঙ্গেয় ও দাক্ষিণাত্যের উপত্যকায় মেসোলিথিক ও চাকোলিথিক যুগের সমাধিতেও এই নিদর্শন আছে | বাকি ছিল সিন্ধু সভ্যতাই‚ এ বার সেই সাধও পূর্ণ হল প্রত্নতাত্ত্বিকদের | 

আরও পড়ুন:  পুরুষ থেকে নারী হয়ে মাতালেন বিশ্ব সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চ

NO COMMENTS