১৯৭১-এর পর আবার নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে পাকিস্তানের ঘরে ঢুকে আক্রমণ ভারতের

437

আকাশপথে হামলা চালিয়ে জৈশ-ই-মহম্মদ, লস্কর-ই- তইবা এবং হিজবুল মুজাহিদিনের তিনটি জঙ্গি ঘাঁটিতে আক্রমণ করল ভারত । এই নন-মিলিটারি প্রিএম্পটিভ এয়ার স্ট্রাইক পাক অধিকৃত কাশ্মীরের সীমানা অতিক্রম করে বালাকোটে, সীমান্ত থেকে প্রায় ৮০ কিলোমিটার ভিতরে ঢুকে হামলা চালায় ভারতীয় বায়ু সেনা৷ বালাকোট পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখওয়া প্রদেশের একটি শহর। নিয়ন্ত্রণরেখার থেকে এর দূরত্ব ৩১ মাইল, অর্থাত্‍ ৫০ কিমি। ১৯৭১ সালের যুদ্ধের পর এই প্রথম নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে এই ভয়ঙ্কর হামলা চালাল ভারতীয় সেনাবাহিনী৷ কার্গিল যুদ্ধের সময় বায়ুসেনাকে নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরোনোর অনুমতি পায়নি৷ দেওয়া হয়নি | কিন্তু এ বার তাদের প্রত্যাঘাতের অবাধ স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছিল |

মঙ্গলবার গভীর রাতে মোট তিনটি জায়গায় ১২টি মিরাজ ২০০০ বিমান নিয়ে হামলা চালিয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা ৷ প্রায় তিন দশক ধরে ভারতীয় বাযুসেনার অন্যতম যুদ্ধবিমান ফ্রান্সে তৈরি মিরাজ-২০০০। এই যুদ্ধবিমানের সাহায্যেই বায়ুসেনা গুঁড়িয়ে দিয়েছে বেশ কয়েকটি জঙ্গি শিবির৷ পাক র‍্যাডার এড়াতেই এই বিমান ব্যবহার করা হয়েছে, বলে জানা গিয়েছে৷ বালাকোটে জৈশের সবচেয়ে বড় জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে এই পালটা আক্রমণে৷

মঙ্গলবার বেলা ১২ টা নাগাদ বিদেশ সচিব বিজয় গোখলে সাংবাদিক বৈঠক করে সরকারিভাবে জানালেন, “হ্যাঁ আমরাই জৈশ  ঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছি। তাতে জৈশপ্রধান মৌলানা মাসুদ আজহারের শ্যালক মৌলানা ইউসুফ আজহার ওরফে উস্তাদ গনি নিহত হয়েছেন। ওই অভিযানের বিস্তারিত বিবরণও দেন বিদেশ সচিব।”

জঙ্গি হামলায় উরিতে সেনা জওয়ানদের নিহত হওয়ার প্রত্যাঘাত হিসেবে ২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে ভারতীয় সেনাবাহিনী | কিন্তু সেই অভিযানও ছিল মূলত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর | সেদিক দিয়ে দেখতে গেলে সাম্প্রতিক অতীতে এই এয়ার স্ট্রাইক পাকিস্তানকে ভারতের দেওয়া ভয়াবহতম পাল্টা উত্তর |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.