নিখোঁজ হওয়ার আঠারো বছর পরে তরুণীর মৃতদেহ তারই দিদির ফ্রিজে

নিখোঁজ হওয়ার আঠারো বছর পরে তরুণীর মৃতদেহ তারই দিদির ফ্রিজে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

প্রায় আঠারো বছর আগে নিখোঁজ হয়েছিলেন ক্রোয়েশিয়ার এক ছাত্রী। অনেক খুঁজেও কোনও হদিশ মেলেনি তাঁর। অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল হারিয়ে যাওয়া ওই ছাত্রীর। তবে জীবিত অবস্থায় নয়। তার থেকেও বড় চাঞ্চল্যকর তথ্য হল, তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করা হল তাঁরই দিদির রেফ্রিজারেটরের মধ্যে থেকে !

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে ক্রোয়েশিয়ায়। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি উত্তর ক্রোয়েশিয়ার মালা সুবোটিকা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে দেহটি। ক্রোয়েশিয়া পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০০০ সালে জেসমিনা ডমিনিক নামে ওই ছাত্রী যখন নিখোঁজ হয়ে যান, তখন তার বয়স ছিল মাত্র ২৩। জেসমিনা সেই সময় জাগ্রেবে পড়াশোনা করছিলেন। দু’চোখে অনেক স্বপ্ন ছিল জেসমিনার। নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার আগে সে তাঁর বাবাকে জানিয়েছিল, ক্রুজে কাজ করতে যায় সে। কিন্তু সেই স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেল, কারণ তারপর থেকে আর তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

সূত্রের খবর, দীর্ঘ দিন ধরে জেসমিনা নিখোঁজ হওয়া স্বত্তেও তার পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশকে কিছুই জানানো হয়নি। অবশেষে নিখোঁজ হওয়ার প্রায় পাঁচ বছর পর জেসমিনার পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশে অভিযোগ জানানো হয়। পুলিশের সন্দেহ, ওই রেফ্রিজারেটরে লুকিয়ে রাখার আগে খুন করা হয়েছিল জেসমিনাকে। কিন্তু তবুও পোস্টমর্টেম রিপোর্ট হাতে না পাওয়া অবধি এখনই নিশ্চিত হয়ে কিছু বলতে নারাজ পুলিশ কর্তৃপক্ষ। ওইদিন জেসমিনার খুনের তদন্তের সূত্রে কোয়েশিয়ার মালা সুবোটিকা গ্রাম থেকে ৪৫ বছর বয়সী এক মহিলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যদিও সেই মহিলার পরিচয় গোপন রেখেছে ক্রোয়েশিয়া পুলিশ, কিন্তু স্থানীয় সূত্রে খবর ধৃত ওই মহিলাই জেসমিনার দিদি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।