শুধুমাত্র সুস্বাস্থ্যই নয়, সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতেও দারুণ ভূমিকা পালন করে করলা

সুস্বাস্থ্যের জন্য করলা কতখানি উপকারী তা হয়তো কারওরই অজানা নয়। কিন্তু আপনার সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতেও করলা কতখানি কার্যকর তা হয়তো অনেকেরই অজানা। আসুন জেনে নেওয়া যাক সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতে করলার কিছু উপকারিতার কথা।

* বয়সের তুলনায় যদি ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে চান, তাহলে আজ থেকেই করোলা খাওয়া শুরু করুন। কারণ এতে ভিটামিন সি খুব বেশি পরিমাণে থাকে যা বার্ধক্য রোধ করতে সাহায্য করে। তাড়াতাড়ি উপকার পেতে, করলা সেদ্ধ করে তাতে এক চিমটে গোল মরিচের গুঁড়ো ছড়িয়ে খেয়ে নিন।

* ত্বকে ব্রণ হলে কমে যায় কিন্তু, ব্রণর দাগ তাড়াতে অনেকখানি বেগ পেতে হয়। ত্বকের উপর যে-কোনও ধরণের দাগ দূর করতে পারে এক গ্লাস করলার রস। পদ্ধতিও খুব সহজ। একটি করলার সঙ্গে পরিমাণ মতো জল দিয়ে ব্লেন্ডারে দিয়ে ঘুরিয়ে নিলেই জুস তৈরি। স্বাদমতো নুন মিশিয়ে পান করুন।

* বাজারে চলতি কেমিক্যাল-যুক্ত ক্রিম, ফেসপ্যাক ব্যবহার করেও যখন মনের মতো উপকার পাচ্ছেন না, তখন আজই একবার করলার ফেসপ্যাক ব্যবহার করে দেখুন। হাতেনাতে উপকার পাবেন। পদ্ধতিও খুব সহজ। একটি করলা সেদ্ধ করে চটকে নিয়ে ত্বকে মেখে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে মাত্র দু’দিন এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করলে তফাৎ নজরে পড়বে।

*  করলার রস ক্লিনজার হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে। করলার রস করে নিয়ে সেটি একটি তুলোর বল দিয়ে সারা মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আর প্রথমবার ব্যবহারেই আপনি পেয়ে যাবেন তারুণ্যে  ভরা উজ্জ্বল ত্বক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here