শুধুমাত্র মশলা হিসেবেই নয়, গোল মরিচে রয়েছে আরও কিছু অজানা গুণ

288

গোল মরিচ মূলত একটি লতাজাতীয় উদ্ভিদ। এর ফলকে শুকিয়ে এটি মসলা হিসাবে ব্যবহার করা হয়। প্রাচীনকাল থেকেই রান্নার স্বাদ এবং সুগন্ধ বাড়াতে গোলমরিচ ব্যবহার করা হলেও গোলমরিচের অন্যরকম কিছু ব্যবহার রয়েছে যা আমাদের অনেকেরই অজানা। সেইসব অজানা গুণের সন্ধান রইল এই প্রতিবেদনে।

* ধূমপান করার নেশা থেকে মুক্তি পেতে চান? তাহলে গোলমরিচে রয়েছে এর সমাধান। একটি তুলোতে গোলমরিচের তেল মাখিয়ে নিতে হবে। যখনই ধূমপান করতে ইচ্ছা করবে তখন গোলমরিচের তেল ভেজানো তুলোর ঘ্রাণ নিতে হবে। দেখা যাবে ধূমপানের ইচ্ছা একেবারেই চলে গেছে।

* ঠান্ডা-গরম থেকে কাশির সমস্যা হলে ১ টেবিল চামচ গোলমরিচের গুঁড়ো, ২ টেবিল চামচ মধু এক কাপ জলে মিশিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি ঠান্ডা হলে পান করে নিতে হবে। কাশি ম্যাজিকের মতো উধাও হয়ে যাবে।

* বন্ধ নাক খুলতে বিশেষভাবে কাজ দেয় গোল মরিচ। ৫ ফোঁটা গোল মরিচের তেল এবং ইউক্যালিপ্টাস তেল জলে মিশিয়ে নিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। এই জলে ভেপার নিলে বন্ধ নাক খুলে যাবে আর গলায় আরামও হবে।

* পেশীর ব্যথা কমাতে গোল মরিচ তেলের ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি পেশীর ব্যথা কমিয়ে, মাংশপেশী শক্ত করতে সাহায্য করে। ২ টেবিল চামচ গোল মরিচের তেলের সাথে ৪ চা চামচ রোজমেরী তেল বা আদার রস মিশিয়ে নিয়ে মিশ্রণটি ব্যথার উপর মালিশ করলে আরাম পাওয়া যাবে।

* হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে গোল মরিচ। গোলমরিচ খেলে পাকস্থলী থেকে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড নিঃসৃত হয় যা খাবার দ্রুত হজম করতে সাহায্য করে এবং অরুচি দূর করে এবং খিদে বাড়ায়।

* ত্বকের যত্নেও অব্যর্থ হল গোল মরিচ। অবাককর হলেও এটাই সত্যি। গোল মরিচে রয়েছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি ব্যাক্টরিয়্যাল উপাদান যা ত্বক ভিতর থেকে পরিষ্কার রাখে এবং ব্ল্যাক হেডস্‌ দূর করতে সাহায্য করে।

* কাপড়ের রং ধরে রাখতেও কিন্তু বিশেষভাবে সাহায্য করে। কাপড় কাচার সময়ে ডিটারজেন্টের সঙ্গে এক চামচ গোল মরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। কাপড়ের উজ্জ্বলতা বজায় থাকবে অনেকদিন।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.