এঁরা মুঘল বংশের উত্তরসূরী‚ এখন এঁদের কীভাবে দিন চলে দেখুন

15668

হায়দ্রাবাদের মালকপেটের এবড়োখেবড়ো তস্য গলির পাশে আছে আসমান গড় | নাম শুনলে মনে হবে বুঝি প্রাসাদ | সামনে গেলে দেখা যাবে চার কামরার ভাড়া বাড়ি | সেখানে দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে থাকে এমন এক পরিবার‚ কয়েকশো বছর আগে যাদের পূর্বপুরুষদের পায়ের নিচে ছিল এশিয়ার একটা বড় অংশ | 

এই বাড়িতেই থাকে মুঘল উত্তরসূরীদের একটি শাখা | দেড় দশক আগেও কেউ জানত না | অনেক খুঁজে বের করে এক তরুণ তথ্যচিত্রপরিচালক | যদিও তার পর থেকে অবস্থা বিশেষ পাল্টায়নি বাসিন্দাদের |

ঘিঞ্জি এই পরিবেশের বাসিন্দা জিয়াউদ্দিন টাকি | যাঁর মা উমাহনি বেগমের বাবা ছিলেন মির্জা পায়ার | এই মির্জা পায়ার আবার শেষ মুঘল সম্রাট দ্বিতীয় বাহাদুর শাহ জাফরের নাতির ছেলে বা পুতি | আবার উমাহনির মা ছিলেন হায়দ্রাবাদের নিজাম বংশের মেয়ে |

একদিকে মুঘল‚ অন্যদিকে নিজাম‚ এই দুই পরিবারের রক্ত বইছে ধমনীতে | কিন্তু সে কথা নিজেরাই ভুলতে বসেন মাঝে মাঝে | জীবনযুদ্ধে ক্ষত বিক্ষত হতে হতে মনেই থাকে না তাঁদের পূর্বপুরুষরা একসময় উত্তরাধিকার ছিলেন ময়ূর সিংহাসনের | মলিন দেওয়াল থেকে বিবর্ণ হাসি হাসে মুঘল সম্রাটদের তৈলচিত্র |

জিয়াউদ্দিনের বাবার উপার্জন বলতে ছিল ২৫ টি রিক্সার ভাড়া | তাঁর মালিকানায় হায়দ্রাবাদ শহরে চলত রিক্সাগুলো | জিয়াউদ্দিন নিজের রাজ্য সরকারি চাকরি করতেন | অবসরের দীর্ঘদিন পরে তাঁর অবলম্বন এখন পেনশনের কিছু টাকা |

১৮৬১ খ্রিস্টাব্দে প্রয়াত হন ভারতের শেষ মুঘল সম্রাট দ্বিতীয় বাহাদুর শাহ জাফর | তারপরে বিলীন হয়ে যায় বিখ্যাত মুঘল বংশ | জিয়াউদ্দিন যোগাযোগ করেছেন দেশের অন্য প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মুঘল উত্তরসূরীদের সঙ্গে | অনেকের হাল তাঁদের থেকেও খুবই খারাপ |

১৯৯৩ সালে উজবেকিস্তানে আমন্ত্রিত হয়েছিল এই পরিবার | সম্রাট বাবরের ৫১০ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে | সেই দেশের আন্দিজোনে রীতিমতো লাল গালিচা পেতে স্বাগত জানানো হয়েছিল তাঁদের | পরিবারের সন্তানদের জন্য দেওয়া হয়েছিল জলপানি পেয়ে পড়াশোনার সুযোগ |

কিন্তু উজবেকিস্তানের কর্কশ জলবায়ুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেনি পরিবারের নতুন প্রজন্ম | দু এক বছর কাটিয়েই ফিরে এসেছে ভারতে | তাঁদের পূর্বপুরুষরা যেভাবে প্রতিকূলতার সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছিল‚ পারেনি আজকের প্রজন্ম | শিকড়ের টান শিকেয় তুলে ফিরে এসেছে ভারতবর্ষেই |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.