লটারিতে ১০০ কোটিরও বেশি জিতে তিনি চান দরিদ্র শিশুদের পড়াশোনার দায়িত্ব নিতে

জীবনে বিভিন্ন সময়ে নানা প্রতিকূলতার সামনে পড়তে হয় আমাদের প্রত্যেককে | কিন্তু নিজের জীবনের সমস্যা থেকে বেরিয়ে গেলেই আমরা অনেকেই ভুলে যাই যে আরও অনেক মানুষের জীবনে ওই একই সমস্যা দেখা দিতে পারে | সমস্যার সময় অন্যদের পাশে দাঁড়ানোর কথা ভেবে উঠতে পারিনা বা দাঁড়াতে পেরে উঠিনা আমরা অনেকেই | কিন্তু ” মানুষ মানুষের জন্য/  জীবন জীবনের জন্য / একটু সহানুভূতি … ” যে মানুষ পেতেই পারে তা প্রমাণ করে নতুন নজির গড়ছেন কৃষ্ণ বারির মত সহৃদয় মানুষ |

অনিশ্চিত ভবিষ্যতের হাত ধরে এক শ্যালকের সহায়তায় একদিন অ্যামেরিকায় এসেছিলেন কৃষ্ণ | অ্যামেরিকায় থেকেই স্নাতকোত্তর পাশ করেন | পড়াশোনার খরচ সে সময় তাঁকে নিজেকেই জোগাতে হত | খরচ জোগাবার জন্য কাজ করেছেন বইয়ের দোকানে | ১২ ঘন্টা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে পার্কিং লটেও করেছেন কাজ | অ্যামেরিকার মত দেশেও পড়াশোনার খরচ জোগাতে কতখানি পরিশ্রম করতে হয় তা উপলব্ধি করেছেন ভালভাবেই |

কিছুদিন আগে ১০ টি লটারির টিকিট কিনেছিলেন তিনি | সৌভাগ্যবশত লটারির ১০ টি টিকিটের নম্বরই জয়ী হয় | জ্যাকপট জেতেন ফ্লোরিডার টাম্পা শহরের বাসিন্দা কৃষ্ণ | মোট টাকার অঙ্ক ১৪.৫ মিলিয়ন ডলার | ভারতীয় মুদ্রায় ১০৪ কোটিরও বেশি টাকা | এত টাকা হাতে পেলে কীভাবে যে খরচ করা যায় তাই ভাবতেই চলে যায় অনেকটা সময় | কৃষ্ণ কিন্তু ততখানি সময় নেননি ভাবতে | ইতিমধ্যেই ঠিক করে ফেলেছেন কী করবেন এই বিপুল অঙ্কের টাকা দিয়ে | এবং তাঁর উদ্দেশ্যই তাঁকে আর পাঁচজন মানুষের থেকে আলাদা করে দেয় |

লটারিতে জেতা টাকা দিয়ে একটি বাড়ি ও একটি গাড়ি কিনতে চান কৃষ্ণ | কিন্তু এ আর এমন কী ! যে কোনও মানুষই তো টাকা পেলে বাড়ি গাড়ি কিনতে চায় | তবে এইটুকুতেই শেষ নয় কৃষ্ণের ইচ্ছে | তিনি চান অবশিষ্ট টাকা দিয়ে তিনি গড়ে তুলবেন একটি এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যেখানে আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া শিশুদেরকে পড়াশোনা শেখানো হবে | নিজে পড়াশোনার ক্ষেত্রে যেভাবে অর্থকষ্টে ভুগেছেন তেমন করে যাতে আর কাউকে ভুগতে না হয় তার জন্যই কৃষ্ণের এই সাধু প্রচেষ্টা | তাঁর তৈরি করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অন্তত ১০০ জন শিশুকে যাতে পড়াশোনা করাবার ব্যবস্থা করা যায় সেই চেষ্টায় রয়েছেন তিনি |

যে শ্যালকের সহায়তায় একদিন বিদেশে পাড়ি দিয়েছিলেন সম্প্রতি মারা গিয়েছেন সেই শ্যালক | তাই কৃষ্ণের ইচ্ছা তাঁর সেই শ্যালকের স্মৃতিতেই তৈরি করবেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি | এইভাবেই আশার আলো সমাজে ছড়িয়ে দিচ্ছেন কৃষ্ণ বারির মত মানুষেরা |

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

pakhi

ওরে বিহঙ্গ

বাঙালির কাছে পাখি মানে টুনটুনি, শ্রীকাক্কেশ্বর কুচ্‌কুচে, বড়িয়া ‘পখ্শি’ জটায়ু। এরা বাঙালির আইকন। নিছক পাখি নয়। অবশ্য় আরও কেউ কেউ