আয়েশা টাকিয়াকে আজকাল আর বড়পর্দায় বিশেষ দেখা যায় না | সম্প্রতি ৩২ বছরে পা দিয়েছেন উনি | কিন্তু এর মধ্যেই কোথায় গেলেন এই অভিনেত্রী?

Banglalive

আয়েশা বলিউডে ডেব্যু করেন ২০০৪ সালে টারজান দ্য ওয়ান্ডার কার ছবি দিয়ে | এই ছবি বক্স অফিসে খুব একটা সফল হয় নি | কিন্তু ওঁর অভিনেয়ের বেশ প্রশংসা হয় | ওই বছরেই মুক্তি পায় ওঁর দ্বিতীয় ছবি সোচা না থা | এর পর বেশ কয়েকটা ছবিতে দেখা যায় ওঁকে | তার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য ডোর যা ২০০৬ সালে মুক্তি পায় |

২০০৯ সালে আয়েশা ফারহান আজমির সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন | এর পরে বড়পর্দায় খুব একটা আর দেখা যায়নি ওঁকে | সলমন খান অভিনীত ওয়ান্টেড‚ যা ওঁর বিয়ের কদিনের মধ্যে মুক্তি পায়‚ সেটা ছিল ওঁর শেষ ছবি |

শুনলে আশ্চর্য হয়ে যাবেন আয়েশা যখন বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তখন ওঁর মাত্র ২৩ বছর বয়স ছিল | অনেকেই সেই সময় ওঁকে পাগল বলেছিল এত তাড়াতাড়ি বিয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য |

আয়েশার হাবি ফারহান আজমি একজন রেস্তোরেতঁর | উনি সমাজবাদী পার্টির লিডার আবু আজমির ছেলে | আয়েশার যখন ১৯ বছর বয়স তখন ফারহানের সঙ্গে আলাপ হয় ওঁর | প্রথমে দুজনের মধ্যে শুধুমাত্র বন্ধুত্ব ছিল | কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি প্রেমে পড়েন ওঁরা |

আয়েশা নিজেও কোনদিন ভাবতে পারেননি যে মাত্র ২৩ বছর বয়সে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেবেন উনি | এর ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে উনি বলেন  আমি নিজে কোনদিন কল্পনা করতে পারিনি ২৩ বছরে আমি বিয়ে করে নেব | কিন্তু এটাই তো জীবন | আপনি জানেন না পরের মুহূর্তে আপনার সঙ্গে কী হবে | আমি লাকি‚তাই ফারহানের মতো একজন ব্যক্তির সঙ্গে আমার পরিচয় হয় | অভিনেত্রী হওয়ার আগে আমি অনেক বই পড়তাম‚ ছবি আঁকতাম নিজের মতো করে সময় কাটাতে পারতাম | কিন্তু অভিনয় জীবনে পা দেওয়ার পর সব শেষ হয়ে যায় | এখন আমি আবার নিজের মতো করে সময় কাটাতে পারি | এই জীবন নিয়ে আমি খুব খুশি | 

২০১৩ সালে মা হন আয়েশা | জন্মায় ছেলে মিখাইল আজমি |

আরও পড়ুন:  কেন ভেঙে গেছে সলমন ও সইফের বন্ধুত্ব?

NO COMMENTS