ত্বকের যত্নে দুধের উপকারিতা

রুপচর্চার সঙ্গে সেই প্রাচীনকাল থেকে যে উপাদানটির নাম জড়িয়ে আছে, সেটি হচ্ছে দুধ। প্রাচীনকালে আমাদের দেশে কোনও বিশেষ অনুষ্ঠানে যেমন কনে দেখা, গাঁয়ে হলুদে ত্বকের যত্ন নিতে কাঁচা দুধ ব্যবহার করা হত। কারণ কাঁচা দুধে থাকা বিভিন্ন উপাদান ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। কিন্তু বর্তমানে রুপচর্চায় বাজারে নানান ধরণের রাসায়নিক প্রসাধনী দ্রব্য পাওয়া যায়, যা কর্মব্যস্ত জীবনে ব্যবহার করা খুবই সহজ তবে ক্ষতিকরও বটে। তাই আপনার রোজকার রুপচর্চায় কিভাবে কাঁচা দুধ ব্যবহার করবেন, আজ আমরা তাই জানাচ্ছি।

১। ক্লিঞ্জার

কাঁচা দুধ প্রাকৃতিক ক্লিঞ্জার হিসেবে চমৎকার কাজ করে। প্রতিদিন মুখ পরিস্কারের জন্য কাঁচা দুধ ব্যবহার করলে ধুলো ময়লা ও মরা চামড়া দূর হয়। কাঁচা দুধ ব্যবহারের ফলে ত্বক নরম হয় তাই ব্ল্যাক হেডস বা হোয়াইট হেডস হওয়ার ভয় থাকে না। প্রথম ব্যবহারেই আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ত্বক কতটা নরম ও পরিষ্কার হচ্ছে।

২। ময়েশ্চারাইজার

আপনার মুখ খুব শুষ্ক এবং চামড়া ওঠে? তাহলে আপনার ত্বকের মরা কোষের স্তর দূর করতে ও ত্বককে নরম করতে কাঁচা দুধ সাহায্য করবে। ঠাণ্ডা কাঁচা দুধ আপনার ত্বকে ভাল করে লাগান এবং ১৫-২০ মিনিট রাখুন। তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। আপনার আর আলাদা কোনও ময়েশ্চারাইজারের প্রয়োজন হবে না এবং ত্বক সারাদিন কোমল থাকবে।

৩। ত্বকের তামাটে রঙ হালকা হয়

আপনার ত্বকের গাঢ় ও তামাটে রঙ দূর করতে সাহায্য করবে কাঁচা দুধ। উচ্চমাত্রার ল্যাকটিক অ্যাসিডের উপস্থিতি শুধুমাত্র ত্বকের রঙ হালকা করতেই সাহায্য করে না বরং ত্বকের উপরিভাগের মরা চামড়াও দূর করে। তাজা কাঁচা দুধ একটি পাত্রে নিয়ে এর মধ্যে একটি নরম কাপড় ডুবিয়ে দিন। তারপর কাপড়টি চিপে নিয়ে আপনার ত্বকে লাগান। সপ্তাহে ৩দিন এঠি ব্যবহার করুন।

৪। ত্বকের ব্রণ কমিয়ে দেয়

ত্বকের ব্রণ কমাতে দুধ ও দুধের সর খুবই কার্যকরী। এক্ষেত্রে দুই চামচ দুধের সরের সঙ্গে এক চামচ মধু এবং অল্প পরিমাণে হালকা গরম জল মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে নিয়ে পেস্টটি মুখে এবং গলায় লাগিয়ে কিছু সময় রেখে দিন। এরপর মুখটা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রসঙ্গত, নিয়মিত দুধ খাওয়া শুরু করলেও কিন্তু সমান উপকার পাবেন।

৫। ত্বকের প্রদাহ কমায়

পরিবেশ দূষণ এবং আরও নানা কারণে ত্বকের ভিতরে প্রদাহ সৃষ্টি হয়। ফলে নানাবিধ ত্বকের রোগ হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। তাই ত্বকের পরিচর্যায় কাজে লাগাতে হবে কাঁচা দুধ। এক্ষেত্রে অল্প পরিমাণ দুধের সর এ কাঁচা দুধ মিশিয়ে নিয়ে যদি মুখে লাগাতে পারেন, তাহলে নিমেষে প্রদাহ কমে যাবে।

৬। মৃত কোষের আবরণ সরিয়ে ফেলে

ত্বকের উপরে জমতে থাকা মৃত কোষ বা ডেড সেলের কারণে ত্বকের সৌন্দর্য্য নষ্ট হয়ে যায়। তাই ত্বকের পরিচর্যায় দুধ কাজে লাগান। এক্ষেত্রে অল্প পরিমাণ জল নিয়ে তাতে এক চিমটি লবণ দিয়ে ফুটিয়ে নিয়ে তাতে দুধের সর অথবা দুধ মিশিয়ে নিয়ে মিশ্রনটি মুখে ভাল করে মাসাজ করলেই ফল পাওয়া যাবে।

A

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here