একশো বছর পূর্ণ শরীর্-ভাস্কর্যের শিল্পীর

কালাজ্বরে ভোগা ছেলেটাকে দেখে কেউ ভাবেনি একদিন শরীর ভাস্কর্যের প্রতীক হবে সে | সবাই তাঁ্কে ডাকবে পকেট হারকিউলিস বলে | কিন্তু সেই অসম্ভবটাই সত্য়ি হয়েছে মনোহর আইচের ক্সেত্রে | আজ শতবর্ষ পূর্ণ হল ৪ ফুট ১১ ইঞ্চির এই দীর্ঘদেহীর্ |

মনোহর আইচের জন্ম ১৯১৩-র ১৭ মার্চ্ | পূর্ববঙ্গের কুমিল্লা জেলার ধামতি গ্রামে | ছোট থেকে কুস্তি আর ভারোত্তলন তাঁ্র ভাল লাগত | কালাজ্বরের আক্রমণও কেড়ে নিতে পারেনি সেই ভাল লাগা | ঢাকার জুবিলি স্কুলে পড়তে পড়তেই যোগ দিলেন রূপলাল ব্য়ায়াম সমিতিতে | ক্রমশ পি সি সরকারের ম্য়াজিক শোয়ের সঙ্গে থাকতে শুরু করল তাঁ্র Physique & Magic show |

১৯৪২-এ ২৯ বছরের মনোহর যোগ দিলেন Royal Air Force-এ | পরিচয় হল প্রথাগত weight training-এর সঙ্গে | শিক্সাগুরু ছিল RAF-এর ব্রিটিশ অফিসার Reub Martin |

কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি চলত নিয়মমাফিক free hand exercise | কিন্তু একদিন সেখানেই জড়িয়ে পড়লেন ঝামেলায়্ | এক সাহেবের মন্তব্য়ে অপমানিত হয়ে তাঁ্কে চড় মারলেন্ | আটকানো গেল না তাঁ্র জেল্-বাস্ |

তবে এতে যেন তাঁ্র শাপে বর হল | পাঁ্চিলের ওপারেই চলল weight training | কোনও সরঞ্জাম ছাড়াই রোজ ১২ ঘন্টা ধরে চলত কঠোর শারীরিক কসরত্ | তাঁ্র অধ্য়বসায় দেখে জেল কর্তৃপক্স বিশেষ ডায়েটের ব্য়বস্থা করলেন্ | কিন্তু তাঁ্কে আটকে রাখা হল দেশের স্বাধীনতা লাভ পর্যন্ত |

জেল থেকে বেরিয়ে শুরু হল অন্য় লড়াই | অভাবের বিরুধ্দে যুদ্ধ | জীবন সং্গ্রামে পাশে পেলেন সহধর্মিণী যুথিকাকে | সং্সারের খরচ মেটাতে মনোহর বাধ্য় হলেন অন্য় কাজ করতে | কিন্তু মনের ভিতরের প্য়াশনকে মরে যেতে দেননি তিনি |

১৯৫০-এ ৫৭ বছরের মনোহর আইচ জয়ী হলেন Mr. Hercules Contest-এ | পরের বছর Mr. Universe Contest-এ অল্পের জন্য় দ্বিতীয় স্থান্ | ইং্ল্য়ান্ডেই থেকে গেলেন মনোহর্ | কাজ নিলেন British Rail-এ | তার পরের বছর আর হাতছাড়া হল না খেতাব্ | নামের আগে জুড়ে গেল ‘বিশ্বশ্রী’ খেতাব্ | একদম পদক জিতেই দেশের মাটিতে পা রাখলেন এই ব্য়ায়ামবীর্ |

ক্রমশ বাড়তে লাগল শিরোপায় সম্মান্-পালক্ | জমতে থাকল পুরস্কার্ | এই সেদিন, ১৯৬০ সালেও, বিশ্বশ্রী প্রতিযোগিতায় চতুর্থ হয়েছেন ৪৭ বছরের মনোহর আইচ্ |

তাঁ্র আখড়ার মান রেখেছেন সত্য়েন দাস, সত্য় পাল, সন্দীপন সেন আর হিতেশ চট্টোপাধ্য়ায়ের মতো তাঁ্র যোগ্য় শিষ্য়রা | এখন আখড়ার দেখভাল করেন তাঁ্র এক ছেলে |

মনোহর আইচের খাওয়া নিয়ে একসময় অনেক গল্প প্রচলিত ছিল | তো, এখন কী খান এই শতায়ু? সকাল শুরু হয় কফি দিয়ে | অর্ধেক দুধ, অর্ধেক জল,কফি আর সামান্য় চিনি | জলখাবারে সুজি-পাউরুটি অথবা লেই করা চিঁ্ড়ে সিদ্ধ |

দুপুরে ভাত, ডাল, সব্জি আর মাছের ঝোল্ | বিকেলে বিস্কুট দিয়ে কফি | আর রাতে সেই দুপুরের মেনু | ডায়েট থেকে একেবারে বাদ মাং্স আর ডিম্ |

তবে কুমিল্লার বাঙাল মনোহরের পছন্দের খাবার এগুলো নয়্ | ভালবাসেন শুঁ্টকি মাছের ঝাল দিয়ে পান্তা ভাত, চিঁ্ড়ের ফলার আর বেলপানা |

কিন্তু এখন শারীরিক কারণে এই খাবার থেকে শতহস্ত দূরে থাকতে হয়্ | তাই নিয়ে কোনও আক্সেপ নেই এই ‘চির নবীন’-এর্ | বরাবরের মতো তিনি সামান্য় খাবারেই সন্তুষ্ট |

জীবনে পাওয়া-না পাওয়ার বিচারও করতে বসেন না ‘দুর্বল বাঙালি’ তকমার মুখে ঝামা ঘষে দেওয়া এই বঙ্গবাসী | শুধু একটাই আক্সেপ রয়ে গেল | আলাপ করা হল না আর এক Mr. Universe খেতাব জয়ী Arnold Schwarzenegger-এর সঙ্গে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here