উড়ানে মরদেহ বয়ে আনার জন্য বিশেষ উদ্যোগ এয়ার ইন্ডিয়ার

উড়ানে মরদেহ বয়ে আনার জন্য বিশেষ উদ্যোগ এয়ার ইন্ডিয়ার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

বিদেশের মাটিতে প্রিয়জনের মৃত্যু হলে মরদেহ দেশে আনতে অনেক কাঠ-খড় পোড়াতে হয়। প্রক্রিয়াটি যে শুধু সময়সাপেক্ষ, তা-ই নয়, ব্যয়সাপেক্ষও বটে। সমস্যা এড়াতে এয়ার ইন্ডিয়ার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হল ভারত সরকার। এবার থেকে বিদেশে কোনও ব্যক্তির মৃত্যু হলে মরদেহ দেশে ফেরানোর জন্য কোনও অতিরিক্ত টাকা নেবে না এয়ার ইন্ডিয়া।

বিদেশমন্ত্রক এবং অসামরিক বিমান দফতরের দীর্ঘ আলাপ-আলোচনার পর সমাধানসূত্রে পৌঁছেছে তাঁরা। ভারত সরকারের সঙ্গে যে চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছে সেই অনুযায়ী প্রতিটি মৃতের পরিবারের থেকে মরদেহ দেশে আনার জন্য সমপরিমাণ টাকা নেবে এয়ার ইন্ডিয়া। ৬টি উপসাগরীয় দেশের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিমান সংস্থা। সংযুক্ত আরব- আমিরশাহি (৩৩ লক্ষ), সৌদি আরব (২৭ লক্ষ), কুয়েত (৯ লক্ষ), ওমান (৮ লক্ষ), কাতার (সাড়ে ছয় লক্ষ) এবং বাহারিন (সাড়ে তিন লক্ষ) এই ৬টি দেশেই প্রবাসী ভারতীয়র সংখ্যা বেশ বেশি।

মধ্যপ্রাচ্যে এই সমস্যা সবচেয়ে বেশি। সেখানে আনুমানিক ৮০ লক্ষ ভারতবাসীর বাস। প্রতিদিন গড়ে ১০জন ভারতীয়র মৃত্যু হচ্ছে সেখানে। অধিকাংশই হয় স্বাভাবিক মৃত্যু না হয় পথ দুর্ঘটনার কারণে মৃত্যু। সরকারি সূত্রে খবর, চলতি মাসের শুরু থেকে মরদেহ দেশে আনার খরচ প্রায় ৪০ শতাংশ কমেছে। ১২ বছরের কমবয়সী শিশুর মৃতদেহ আনার ক্ষেত্রে অর্ধেক টাকা নেবে বলে জানিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষ। সূত্রের খবর, ২০১৬ থেকে ২০১৮ -এর মধ্যে আর্থিক ভাবে পিছিয়ে থাকা পরিবারের সদস্য, এমন ৪৮৬টি মরদেহ নিখরচায় দেশে ফেরাতে কেন্দ্রের খরচ হয়েছে ১ কোটি ৬ লক্ষ টাকা।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।