অবশেষে ৪৭ বছর আগে চুরি যাওয়া ১১০ কোটির মূর্তির খোঁজে তদন্ত শুরু

318

তামিলনাড়ুর থাঞ্জাভুর জেলার কুম্বাকোনাম-এর কাছে নটনাপুরীশ্বর মন্দির থেকে সাতটি মহামূল্য পঞ্চলোহা মূর্তি চুরি যাওয়ার অভিযোগ পুলিশের খাতায় নথিভুক্ত করা হয়েছিল আজ থেকে সাতচল্লিশ বছর আগে। এতদিনে সেই চুরি যাওয়া মূর্তির এফআইআর দায়ের করল তামিলনাড়ুর আইডল উইং পুলিশ। ১৯৭১ সালের ১২ মে চুরি গিয়েছিল নটনাপুরীশ্বর মন্দিরের সাত-সাতটি মূর্তি। ৪৭ বছর বাদে বাসু আইয়ার নামে এক ব্যক্তির অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দণ্ডবিধি ৪৫৭(২), ৩৮০(২) এবং ১২০(খ) ধারা অনুসারে শুরু হল তার তদন্ত !

পুলিশ সূত্রে খবর, এক ফুট এবং দেড় ফুট লম্বা দুটি নৃত্যরত কৃষ্ণ মূর্তি, আড়াই ফুটের একটি অগস্ত্যর মূর্তি, একটি ছয় ইঞ্চির আইয়ানার-এর মূর্তি এবং ছয় ইঞ্চির একটি আম্মানের মূর্তি মন্দিরের সদর দরজা ভেঙে লুঠ করে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। তার পরের বছর আরও একটি চুরির ঘটনা ঘটে যেখানে,  ঠন্ডন থোট্টাম গ্রামে অবস্থিত ১৩০০ বছরের পুরনো একটি মন্দির থেকে আরও তিনটি পঞ্চলোহা মূর্তি চুরি করে দুষ্কৃতীরা । সাতটি মূর্তির মোট মূল্য ১১০ কোটি টাকা।

মন্দিরের ট্রাস্টের তরফ থেকে বারবার বলা সত্ত্বেও এই চুরির বিষয়ে এতদিন কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি। গত সাতচল্লিশ বছর ধরে বিষয়টি কেবল পুলিশের খাতায় নথিভুক্ত হয়ে পড়েছিল, এতদিনে একটা এফআইআর-ও দায়ের করেনি পুলিশ। সম্প্রতি, বিষয়টি প্রকাশ্যে আসায় মূর্তি খুঁজতে তড়িঘড়ি তদন্তে নামে পুলিশ। মন্দিরের ট্রাস্টের পক্ষ থেকে বাসু আইয়ার জানিয়েছেন এতদিন ধরে, চুরি যাওয়া মূর্তির জায়গায় নকল মূর্তি বসিয়ে পুজো করা হয়ে আসছে। ইতিমধ্যে মূর্তি চুরির বিষয়টি তদন্ত করতে মাদ্রাজ হাইকোর্ট একটি বিশেষ তদন্তকারী কমিটি গঠন করেছে। সেইসঙ্গে তদন্তের জন্য প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.