অতিরিক্ত চুল ওঠার কয়েকটি কারণ

1542

চুল উঠে যাওয়ার সমস্যা নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবারই দেখা যায় | অতিরিক্ত পরিমাণে চুল উঠে যেতে থাকলে তা আটকাতে কিছু না কিছু ব্যবস্থা অবশ্যই নেওয়া দরকার | অল্প কিছু চুল পড়া স্বাভাবিক | কারণ একটা নির্দিষ্ট সময়ের পরে চুল আপনিই পড়ে যায় | প্রতিদিন একজন মানুষের স্বাভাবিকভাবেই ৭৫ থেকে ১০০ টি চুল পড়তে পারে | কিন্তু যদি এর থেকেও বেশি পরিমাণে চুল পড়ে তাহলে বুঝতে হবে নিশ্চয়ই কোনও সমস্যা হচ্ছে | আসুন জেনে নেওয়া যাক কী কী কারণে চুল পড়ে যেতে পারে |

১| অতিরিক্ত চিন্তা করলে দেহে যেসব খারাপ প্রভাব দেখা যায় তার মধ্যে একটি হল চুল পড়া | মুম্বইয়ের কিউটিস স্কিন স্টুডিওর ত্বকবিশেষজ্ঞ ড. অপ্রতিম গোয়েল জানাচ্ছেন যেসব যেসব কমবয়সের মানুষেরাও অতিরিক্ত চিন্তা করেন তাঁদের বেশি মাত্রায় চুল পড়ে যেতে দেখা যায় | যদিও বেশি চিন্তা করলে কেন চুল পড়ে তার সঠিক বৈজ্ঞানিক কোনও কারণের কথা জানা যায়নি‚ তবু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন অতিরিক্ত চিন্তা করলে দেহের কার্যকর হরমোনগুলির মাত্রা বাড়তে বা কমতে থাকে | সেই কারণেই চুল পড়ে যায় |

২| পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার না অভ্যাস না থাকলে বা অনিয়মিত‚ অপুষ্টিকর খাওয়াদাওয়া করলে চুল পড়ে | শুধুমাত্র ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্টই শরীরের পুষ্টির জন্য যথেষ্ট নয় | সঙ্গে সঙ্গেই প্রয়োজন আছে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টেরও | দেহের জন্য জরুরি যেসব নিউট্রিয়েন্ট‚ ভিটামিন‚ মিনারেল উপাদান সেগুলি সঠিক পরিমাণে না গ্রহণ করলে চুলের স্বাস্থ্য খারাপ হতে থাকে | চুল তখন রুক্ষ‚ শুষ্ক ও প্রাণহীন হয়ে পড়ে এবং অতিরিক্ত চুল পড়তে দেখা যায় | চুল পড়া কমাতে আয়রল‚ ফলিক অ্যাসিড‚ সেলেনিয়াম‚ ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া খুবই জরুরি |

৩| এখন নিয়মিত শরীরচর্চা ও পুষ্টিকর খাবার না খাওয়ার জন্য শরীরের রোগ প্রতিরোধ শক্তি কমে যায় এবং খুব সহজেই আমরা নানা রোগে আক্রান্ত হই | সেইসব রোগকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য অনেকরকমের ওষুধ খেতে হয় | অনেক ওষুধ খাওয়ার জন্য শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় | ফলে চুলও উঠতে থাকে বেশি | অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট‚ অ্যানাবলিক স্টেরয়েড‚ অ্যান্টি-ক্যান্সার‚ পেইন কিলার ও বিপি নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদির ওষুধ যাঁরা খান তাঁদের শরীরে এইসব ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হওয়ার জন্য চুল পড়ে | যদি এইসব ওষুধের মধ্যে কোনওটি আপনার জন্য একান্তই জরুরি হয় তাহলে চুল পড়া কমানোর জন্য কোনও বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার দরকার | কারণ এই ধরণের ওষুধগুলি হেয়ার ফলিকলগুলিকে শকড করে দেয় যার জন্য চুল পড়ে যেতে থাকে |

৪| জটিল ও মারাত্মক কোনও রোগে বা অসুখে আক্রান্ত হলেও চুল পড়তে পারে | ক্যান্সারের রোগীদের চুল পড়ে যায় একথা অনেকেই জানেন | এছাড়াও ম্যালেরিয়া‚ টাইফয়েড ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত হলেও চুল পড়তে পারে |

৫| দীর্ঘকাল ধরে কেউ ডায়বেটিস‚ থাইরয়েড বা আর্থারাইটিসের সমস্যায় ভুগলে তাঁরও চুল পড়তে পারে | এইসব রোগ থাকলে হেয়ার ফলিকলে রক্ত চলাচল সঠিকভাবে হয় না এবং মেটাবলিজমের ক্ষেত্রেও নানা সমস্যা হয় যার ফলে চুল পড়ে যেতে থাকে |

৬| আপনার পরিবারের সদস্যদের যদি চুল পড়ার সমস্যা থাকে তবে জিনগত কারণেও আপনার চুল পড়তে পারে | এক্ষেত্রে জিনগত কারণে চুল পড়ে তাই আপনার এতে কোনও দায় নেই | আপনার বাবা-মায়ের বা দাদু-ঠাকুমারও যদি টাক পড়ার সমস্যা থেকে থাকে তাহলে খুব কম বয়সে আপনারও টাক পড়ে যেতে পারে | সেক্ষেত্রে যাতে চুল পড়ার পরিমাণ কমানো যায় সেই চেষ্টা করতে হবে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.