শিশুর চারটি হাত‚ দুটি পা‚ চিকিৎসার ব্যয় জোটাতে নাভিশ্বাস পরিবারের

532

মানুষের মাতৃজঠরে গঠনপ্রক্রিয়ায় মানুষের কোনও কোনও হাত থাকে না | মায়ের জঠরে শিশুভ্রূণ কেমন ভাবে বেড়ে উঠবে তা অজানাই | তাই হয়ত পৃথিবীতে ঘটে এমন কিছু অদ্ভুত ঘটনা যা অবাক করে দেয় মানুষকে | উত্তর ভারতের পানিপথে জন্ম হয়েছে দুটি শিশুর যাদের শরীর একসঙ্গে যুক্ত | তাদের নিয়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা |

সদ্যোজাত এই দুটি যমজ শিশুর জরুরি অঙ্গপ্রত্যঙ্গগুলি আলাদা আলাদা হলেও তাদের শরীরের নীচের অংশটি একেবারেই একসঙ্গে জোড়া | হাত চারটি থাকলেও পা দুটি | ডাক্তাররা আশা করছেন এখন যেহেতু শিশুদুটিকে দুধ খাওয়ানো সম্ভব হচ্ছে তাই অদূর ভবিষ্যতে তাদেরকে একে অপরের থেকে আলাদা করাও যাবে | এই আশায় মনে জোর ফিরে পেয়েছেন বাচ্চাদুটির পরিবারের মানুষরা |

প্রসব বেদনা নিয়ে বাচ্চা দুটির মা নার্সিংহোমে এলে দেখা যায় তার রক্তচাপ বেশি এবং নর্মাল ডেলিভারি করতে গেলে মায়ের জরায়ুর ক্ষতি হতে পারত | তাই সিজার করেই বাচ্চাদুটিকে পৃথিবীতে আনা হয় | মায়ের গর্ভাবস্থায় তিন মাসে একবারই মাত্র আলট্রাসাউন্ড করানো হয়েছিল | প্রতি তিন মাস অন্তর আলট্রাসাউন্ড পরীক্ষা করানো উচিত | তাতে বোঝা যায় ভ্রূণের কী কী পরিবর্তন হচ্ছে | শিশুদুটির জন্মের সময় দেখা যায় তাদের দুটি মাথা‚ দুটি হৃদযন্ত্র হওয়া সত্ত্বেও শরীরের নিচের অংশটি একইসঙ্গে জোড়া | শিশুদুটির লিঙ্গ সঠিকভাবে নির্ধারণ করা যায়নি | পরে সিটি স্ক্যান ও এম আর আই করে তা নির্ধারণ করা যেতে পারে বলে জানান চিকিৎসকরা |

কিন্তু বাচ্চাদুটির ঠাকুমা রানি (৫০) জানান মায়ের সমস্ত পরীক্ষানিরীক্ষাই নাকি করানো হয়েছিল | কিন্তু ডাক্তাররা তা বুঝতে না পেরে তাঁদের কেবলমাত্র জানান যে যমজ সন্তানের জন্ম হতে চলেছে | দাদু মোহর সিং ( ৫৮ ) জানান বেশিরভাগ ডাক্তারই বাচ্চাদুটির কোনও সাহায্য করতে পারবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন | তাদের বাঁচাতে হলে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এ নিয়ে গিয়ে অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে চিকিৎসা করাতে হবে | কিন্তু তাদের পরিবারের আর্থিক সামর্থ্য না থাকায় পরিজনরা বাচ্চাদুটির চিকিৎসার খরচ জোগাড় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.