মানুষই গিনিপিগ ! নির্জন-বিষাক্ত দ্বীপে পাঠানো হবে অযাচিত শরণার্থীদের

মানুষই গিনিপিগ ! নির্জন-বিষাক্ত দ্বীপে পাঠানো হবে অযাচিত শরণার্থীদের

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

না ! কোন হলিউড সিনেমার গল্প নয়। সত্যি সত্যিই এবার মানুষকেই ব্যবহার করা হচ্ছে গিনিপিগ হিসেবে ।  ডেনমার্কে বসবাসরত বহু শরণার্থীদের সে দেশের সরকার অযাচিত বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে । কিন্তু তাহলে তারা যাবে কোথায় ? এর উত্তরও বাতলে দিয়েছে সে দেশের সরকার। আশ্রয় বাতিল হওয়া আশ্রয়প্রার্থীদের এক দুর্গম দ্বীপে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডেনমার্ক সরকার। এই লিন্ডহম দ্বীপটি বর্তমানে গবেষণাগার, আস্তাবল ও রোগাক্রান্ত পশুদের দাহ করার স্থান হিসেবে ব্যবহৃত হয় ।

ডেনমার্কের শরণার্থী পুনর্বাসন বিষয়ক মন্ত্রী ইঙ্গার স্টোজবার্গ এ বিষয়ক এক ফেসবুক পোস্টে বলেন, “তারা যে ডেনমার্কে অযাচিত, সেটা তারা অনুভব করবে।” তারপরেই আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে । প্রসঙ্গত, যে দ্বীপে তাদের পাঠানো হবে সেটা তা আক্ষরিক অর্থেই জনমানবহীন । মানুষের বাস নেই । আছে কিছু রোগ বহনকারী জীব । যাদের থেকে আশ্রয়প্রার্থীদের দেহেও ছড়াতে পারে এই ভয়ংকর রোগ । যাদেরকে ওই দ্বীপে পাঠানো হবে তাদের মধ্যে দণ্ডপ্রাপ্ত বিদেশি অপরাধীও রয়েছে।অভিবাসনবিরোধী ড্যানিস পিপল’স পার্টি অভিবাসী ও শরণার্থীদের ওপর আরও বিধিনিষেধ আরোপ করার পক্ষে ।

ইতিহাসের পাতা উল্টে দেখলে দেখা যাবে অস্ট্রেলিয়া দেশটিও কিন্তু সেভাবেই তৈরি হয়েছিল । ব্রিটেন থেকে কিছু আসামিকেপাঠানো হয়েছিল বনে জঙ্গল ভরা অস্ট্রেলিয়াতে । সেখান থেকেই আজ এই দেশটি তৈরি। অস্ট্রেলিয়াতে যাঁরা বর্তমানে বসবাস করছেন তারা আসলে আসামিদের বংশধর। কিন্তু এ সবই ঊনবিংশ শতাব্দীর কথা । আজ আধুনিক যুগে দাঁড়িয়ে একটি সভ্য দেশ কি আদৌ এরকম একটি বর্বর সিদ্ধান্ত নিতে পারে ? উঠে আসছে সমাজ তথা আধুনিক সভ্যতার মূল্যবোধ নিয়ে প্রশ্ন ।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।