মেকআপের জিনিসপত্র সহজেই ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে | মেকআপ প্রডাক্টস ব্যাকটেরিয়ার জন্য পার্ফেক্ট ব্রিডিং গ্রাউন্ড | এর ফলে বিভিন্ন ইনফেকশন‚ অ্যাকনে‚ কনজাংটিভাইটিস‚ কোল্ড সোর হতে পারে | এছাড়াও আপনি হার্পিসের দ্বারাও আক্রান্ত হতে পারেন | বেশিরভাগ ডার্মাটোলজিস্টরাই তাই মেক আপের জিনিস শেয়ার করতে নিষেধ করেন |

Banglalive

মুম্বইয়ের একজন বিখ্যাত ডার্মাটোলজিস্ট এবং লেজার সার্জনের কথা অনুযায়ী কারুর যদি হার্পিস থাকে তার ব্যবহৃত লিপস্টিক অন্য কেউ ব্যবহার করলে ইনফেকশন ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায় | তাই মেকআপ ব্রাশ‚ বিউটি ব্লেন্ডার এইসব কারুর সঙ্গে শেয়ার না করাই ভালো | যাদের আগে থেকে অ্যাকনের সমস্যা আছে তাদের সমস্যা আরো বেড়ে যেতে পারে | কোল্ড সোর‚ আঁচিল‚ অ্যাকনে বেড়ে যেতে পারে কারণ ব্যাকটেরিয়া সরাসরি আপনার মুখে ছড়িয়ে পড়তে পারে | চোখের ইনফেকশন যেমন আনজনি‚ মাস্কারা‚ আই লাইনার আর কাজলের মধ্যে দিয়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে |

উনি আরো জানিয়েছেন যেসব প্রডাক্ট যেমন লিপ গ্ল্যস‚ লিপস্টিক‚ মাস্কারা‚ আই লাইনার‚ কাজল‚ প্রেসড ফাউন্ডেশন‚ মেকআপ ব্রাশ‚ দাঁত মাজার ব্রাশ এবং রেজার‚ যা স্কিন আর মিউকাস মেমব্রেনের সঙ্গে সরাসরি সংস্পর্শে আসছে তা অন্য কারুর সঙ্গে শেয়ার না করাই ভালো |

একই সঙ্গে মনে রাখতে হবে মেকআপ কিট কেনার আগে অনেকেই টেস্টার ব্যবহার করেন | সেটাও না করলেই ভালো কারণ ওই একই টেস্টার তার আগে অনেকেই ব্যবহার করেছে | তাই এই ক্ষেত্রে সতর্ক থাকাই ভালো |

নীচের প্রিকশনগুলো মেনে চলুন :

# নিয়মিত মেকআপ ব্রাশ ভালো করে পরিষ্কার করুন |

# এক্সপায়ারি ডেট পেরিয়ে গেছে এমন প্রডাক্ট ব্যবহার করবেন না |

# সব সময় পরিষ্কার পরিছন্ন স্যালোতে যাওয়ার চেষ্টা করুন |

# ডিসপোজেবল টেস্টার ব্যবহার করার চেষ্টা করুন |

যদি কোনরকম অ্যালার্জি‚ ইনফেকশন‚ ইচিং‚ বা জ্বালা অনুভব করেন তাহলে অবশ্যই একজন ডার্মাটোলজিস্টের পরামর্শ নিন | নিজে ডাক্তারি করতে যাবেন না |

আরও পড়ুন:  জানেন কি, বয়সের সঙ্গে সঙ্গে কীভাবে বদলায় ঋতুস্রাব?

NO COMMENTS