কাশি থেকে রেহাই পেতে মেনে চলুন এই সহজ ঘরোয়া টোটকা

বিখ্যাত গায়ক গেয়েছেন‚ ” আমারও তো বয়েস হচ্ছে রাতবিরেতে কাশি / কাশির দমক থামলে কিন্তু বাঁচতে ভালবাসি ” | শুনতে যতই কাব্যগুণান্বিত হোক এই রাতবিরেতে কাশির ব্যাপারটা কিন্তু একেবারেই সুখকর নয় | এই ঋতু পরিবর্তনের সময় আশেপাশের সবাইকেই দেখবেন সর্দি – জ্বর বা কাশির অসুখে ভুগতে | ডাক্তারের পরামর্শমত ওষুধপত্র তো রয়েছেই | সঙ্গে সঙ্গে যদি মেনে চলতে পারেন কিছু সহজ জিনিস তাহলে কাশির সমস্যাকে রাখতে পারবেন নিয়ন্ত্রণে |

১| প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ১ থেকে ৩ বার ১ চামচ করে মধু খেতে পারেন। ঘুমানোর আগেও খেয়ে নিতে পারেন ১ চামচ মধু । মধুর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান কাশি প্রতিরোধে  সাহায্য করে।

২| আদার অ্যান্টিইনফ্লামেটরী উপাদান গলার খুসখুসে ভাব দূর করে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ১ কাপ চায়ের সঙ্গে আদা দিয়ে ফুটিয়ে পান করতে পারেন। এছাড়া ১ কাপ জলে আদা কুচি ফুটিয়ে দিনে ৩ থেকে ৪ বার পান করে দেখুন, কাশি কমবে।

৩| কাশি দূর করতে পেঁয়াজও কার্যকর। আধ চামচ পেঁয়াজের রস এবং ১ চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে চায়ের মতো করে বানিয়ে নিয়ে দিনে ২ বার করে পান করুন। পেঁয়াজের ঝাঁজ কাশি কমাতে সহায়তা করে।

৪| রসুন কাশি সারাতে খুবই উপকারী। রসুনে থাকা এক্সপেকটোরেন্ট এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান কাশির উপশম করে। ১ চামচ ঘিয়ে রসুনের পাঁচটি কোয়া কুচি করে হালকা করে ভেজে নিয়ে ঈষদুষ্ণ অবস্থায় চিবিয়ে খেয়ে নিন।

৫| গার্গল করলে গলাব্যথা কমে। ১ গ্লাস ঈষদুষ্ণ জলে আধ চামচ নুন মিশিয়ে ১৫ মিনিট ধরে গার্গল করুন। এভাবে বিরতি দিয়ে কয়েকবার করুন। এটি কাশি কমাতে খুবই কার্যকর একটি ঘরোয়া পদ্ধতি।

৬| যষ্টি মধু, গোলমরিচ এবং মধুর মিশ্রণ কাশি প্রতিরোধে সাহায্য করে থাকে। এই উপাদানগুলি মিশিয়ে খেতে পারেন।

৭| প্রচুর পরিমানে জল খান। ঈষদুষ্ণ জল খাওয়ার চেষ্টা করুন। দিনে অন্তত ১২ গ্লাস ঈষদুষ্ণ জল খেলে কাশি কিছুটা কমে যায়।

৮| প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ৪ টি তুলসী পাতা চিবিয়ে খেয়ে নিন। চায়ের সঙ্গে তুলসী পাতা মিশিয়েও খেতে পারেন। তুলসী পাতা খুব দ্রুত কাশি কমাতে সহায়তা করে।

৯| আপনার যদি ধূমপান করার অভ্যাস থাকে, বেশি কাশি হলে কয়েকদিনের জন্য ধূমপান বন্ধ রাখুন। ধূমপান করলে কাশি বাড়ে। সম্ভব হলে ধূমপায়ীদেরকেও এড়িয়ে চলুন।

১০| কাশি হলে কয়েকদিন হালকা গরম জলে স্নান করার চেষ্টা করুন। এতে বুকে জমে থাকা কফ গলে যায় ও কাশির উপদ্রব কমে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.