ঘুম ভাঙতেই চোখে পড়ল খাটিয়ার নীচে শুয়ে বিশাল কুমির!

1034

গুজরাতের আনন্দ জেলার সোজিত্রা তালুকের বাসিন্দা ত্রিশ বছরের কৃষক বাবুভাই পারমার। রাতে খাটিয়ায় শুয়ে ঘুমোচ্ছিলেন তিনি। বুধবার রাত দেড়টা নাগাদ কুকুরের চিত্‍‌কারে ঘুম ভেঙে যায় তাঁর। ঘুমের চোখে কিছু বুঝে ওঠার আগেই খাটিয়ার দড়ির ফাঁক দিয়ে মেঝেয় চোখ পড়ল বাবুভাই-এর। তাঁরই খাটিয়ার নীচ থেকে ড্যাব ড্যাব করে তাঁর দিকে চেয়ে আছে বিশাল আকৃতির এক কুমির।

তিনি জানান, রোজকার মতোই গৃহপালিতদের গোয়ালে বেঁধে তিনি মশারি খাটিয়ে শুয়েছিলেন খাটিয়ার উপর। কোনওরকমে জীবন হাতে নিয়ে খাটিয়া থেকে নেমে ঘর থেকে বাইরে বেরিয়ে আসেন । সেই রাতেই প্রতিবেশীদের সাহায্যে বন দফতর-এ খবর পাঠানো হয়।

সোজিত্রা তালুকের মালতজ হ্রদ বাবুভাই পারমার-এর বাড়ি দুশো মিটারের মধ্যেই। ওই অঞ্চলের পঞ্চায়েত প্রধান দুর্গেশ প্যাটেল জানিয়েছেন, এলাকার বিভিন্ন জলাশয়ে প্রায় দেড়শোটির মতো কুমির আছে। আর সেগুলি মাঝেমাঝেই লোকালয়ে চলে আসে। এই অঞ্চলে কুমিরদের উপদ্রব নতুন কিছু নয়। বাবুভাই পারমার-এর বাড়ি থেকে পাওয়া আট ফুট লম্বা স্ত্রী কুমিরটি ছিল সন্তানসম্ভবা। এই মরসুমে তারা যেহেতু ডিম পাড়ে, তাই সেও হয়তো ডিম পাড়ার জন্য জায়গা খুঁজছিল। বন দফতরের সাহায্যে নিরাপদে কুমিরটিকে ঘর থেকে উদ্ধার করে জঙ্গলের জলাশয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.