প্লাস্টিক বর্জ্যের বিনিময়ে মিলবে খাবার, ছত্তিশগড়ে খুলল ভারতের প্রথম ‘গার্বেজ ক্যাফে’

India's first garbage cafe

পৃথিবীর বুকে জঞ্জালের স্তূপ যে হারে বেড়ে চলেছে, তাতে সমস্ত প্রাণী জগত বিপন্ন। স্থলভাগ থেকে জলাশয় সর্বত্রই প্লাস্টিক বর্জ্যে পরিপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে। পরিবেশ থেকে খুব স্বল্প পরিমাণ অবাঞ্ছিত অজীবাণুবিয়োজ্য প্লাস্টিক দূর করা সম্ভব হচ্ছে। তাই প্লাস্টিক জঞ্জালের রিসাইকল পদ্ধতির জন্য একটি অভূতপূর্ব পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ছত্তিশগড় পৌরসভার পক্ষ থেকে খোলা হয়েছে একটি ‘গার্বেজ ক্যাফে’। কী এই ‘গার্বেজ ক্যাফে’? কোনও ব্যক্তি যদি এক কেজি বর্জ্য প্লাস্টিক নিয়ে আসতে পারে, তাহলে তাকে দেওয়া হবে এক বেলার খাবার। কেউ যদি ৫০০ গ্রাম প্লাস্টিক আবর্জনা নিয়ে আসতে পারে, তাকে দেওয়া হবে যথেষ্ট পরিমাণে জলযোগ। এর ফলে সরকার প্লাস্টিক দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে খুব সহজেই। দরিদ্র বর্জ্য কুড়ানি যারা তাদেরও জুটবে পর্যাপ্ত আহার।

কিন্তু পৌরসভা কী করবে এত বর্জ্য প্লাস্টিক দিয়ে? অম্বিকাপুরের রাস্তা তৈরির কাজে লাগানো হবে এই প্লাস্টিক জঞ্জাল। শহরের প্রধান বাস স্ট্যান্ড থেকেই এই ক্যাফেটি চালানো হবে,জানিয়েছেন মেয়র অজয় তিরকে । সম্প্রতি তিনি পৌরসভার বাজেট পেশ করেছেন। ‘গার্বেজ ক্যাফে’র জন্য পাঁচ লাখ টাকা বাজেট ধার্য হয়েছে। প্লাস্টিক কুড়ায় যারা সেই সব ঘরহীন মানুষদের জন্য থাকার ব্যবস্থা করার পরিকল্পনাও করা হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায়, পৌরসভা থেকে গরিব দুঃস্থদের বিনামূল্যে খাবার দেওয়ার বিষয়টি আনা হয়েছে কেন না দুমুঠো খাবারের আশ্বাস পেলে তারা প্লাস্টিক বর্জ্য জোগাড় করে আনার কাজে আরও উৎসাহ পাবে। আর খাবারের পাশাপাশি যদি মেলে একটু থাকবার আশ্রয় তাহলে তো কথাই নেই।

স্বচ্ছতা অভিযানের সঙ্গে এই প্রকল্পটিকে সংযুক্ত করা হবে। স্বাস্থ্য ও পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক প্রচারণার নিরিখে অম্বিকাপুর দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। মেয়র তিরকে ইতিমধ্যেই প্লাস্টিক ক্যারি ব্যাগ নিষিদ্ধ করেছেন এই শহরে। নিঃসন্দেহে এটি একটি পরিবেশ বান্ধব প্রয়াস। অম্বিকাপুরবাসী কারও যদি কোনোদিন বাজার হাট করে রান্না চাপাতে ইচ্ছে না করে তাহলে ভাঁড়ারের জমানো প্লাস্টিক নিয়ে ‘গার্বেজ ক্যাফে’তে গিয়ে হাজির হলেই মিলবে ভরপেট খানা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.