ভৌতিক হোটেলের করিডোরে হাঁটে মেমসাহেবের প্রেতাত্মা‚ খোঁজে ১০৬ বছর আগে কে খুন করেছিল তাকে

ভৌতিক হোটেলের করিডোরে হাঁটে মেমসাহেবের প্রেতাত্মা‚ খোঁজে ১০৬ বছর আগে কে খুন করেছিল তাকে

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

গথিক ঘরনার ১১৪ বছরের প্রাচীন হোটেলের করিডোরে ঘুরে বেড়ায় এক মেমসাহেবের প্রেতাত্মা | শূন্য দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে | সে নাকি এখনও জানতে চায়‚ কে তার ওষুধের শিশিতে বিষ মিশিয়েছিল | এই ভৌতিক অভিজ্ঞতা নাকি অনেকেরই হয়েছে মুসৌরির দ্য স্যাভ্যয় হোটেলে |

১৯০২ সালে প্রথম অতিথি আপ্যায়ন করে এই হোটেল | ব্রিটিশ আমলে বাড়তে থাকে মুসৌরির গুরুত্ব | এবং এই হোটেলটি ছিল শৈলশহর মুসৌরির গর্ব বা ল্যান্ডমার্ক | ছুটি কাটাতে পাহাড়ে গিয়ে এই হোটেলেই ছিল ব্রিটিশদের বাঁধা ঠিকানা | ১৯৬০-এর পর থেকে কমতে থাকে দ্য স্যাভ্যয়-এর গরিমা | প্রতিযোগিতায় পিছিয় পড়তে থাকে অন্য নতুন হোটেলেদের থেকে | ২০০৯ সালে একে কিনে নেয় ITC Welcome Group | ধীরে ধীরে নিজের হৃত সম্মান‚ হারিয়ে যাওয়া কৌলীন্য ফিরে পেতে থাকে দ্য স্যাভ্যয় |

চলুন‚ ফিরে যাই এই হোটেলের সোনালি অতীতে | ১৯১১ সালে নিজের সেরা সময়ের সর্বোচ্চ শিখরে ছিল এই অতিথিবাস | সে বছরেই এখানে থাকতে এসেছিলেন জনৈকা গার্নেট ওর্ম | তিনি ছিলেন স্পিরিচুয়ালিস্ট | এসেছিলেন লখনৌ থেকে | সঙ্গে ছিলেন সঙ্গিনী আর এক স্পিরিচুয়ালিস্ট ইভা মাউন্টস্টিফেন | তিনি নাকি স্ফটিক গোলকে ভবিষ্যৎ দেখতে পেতেন |  

একদিন লখনৌ ফিরে যান ইভা | হোটেলে থেকে যান গার্নেট | এক সকালে দেখা যায় নিজের ঘরে রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে ৪৯ বছর বয়সী গার্নেটের | অটোপ্সি রিপোর্টে জানা যায়‚ গার্নেটের মৃত্যু হয়েছে সায়ানাইড জাতীয় বিষে | এবং সেই বিষ রাখা হয়েছিল গার্নেটের ওষুধের শিশিতে | কিন্তু কে এই কাজ করেছিল‚ আজও তার সমাধান হয়নি | কদিন পরে রহস্যমৃত্যু হয় তাঁর চিকিৎসকেরও | স্ট্রিকনিনের প্রভাবে | সে রহস্যেরও কোনওদিন সমাধান হয়নি |

গার্নেটকে হত্যার দায়ে ধরা হয় ইভাকে | কিন্তু প্রমাণাভাবে তিনি ছাড়া পেয়ে যান আদালতে | এখনও নাকি এই হোটেলের করিডোরে নিশুত রাতে দেখা যায় গার্নেটের অশরীরীকে | খুঁজে বেড়ান নিজের হত্যাকারীকে | জানতে চান কে সেই ঘাতক যে তাঁর ওষুধের শিশিতে বিষ রেখেছিল |

এই ভৌতিক কাহিনির পটভূমিতে আগাথা ক্রিস্টি ১৯২০-তে লিখেছিলেন তাঁর প্রথম উপন্যাস‚‘The Mysterious Affair at Styles’ | একই ঘটনার ছায়া খুঁজে পাওয়া যায় রাস্কিন বন্ডের In A Crystal Ball — A Mussoorie Mystery-তেও |

মুসৌরিতে হিমালয়ের দিকে মুখ করে দাঁড়িয়ে আছে ঘন রহস্যের আধার‚ দ্য স্যাভ্যয় হোটেল |

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।