বিয়ের আসরে বরযাত্রীর নাচ নতুন কিছু নয়। তেমনই ব্যান্ডপার্টি নিয়ে নাচতে নাচতে বর আসছিল বিয়ে করতে। তাঁদের বরণ করতে প্রস্তুত ছিল কনেপক্ষ। আর ঠিক তখনই ঘটে যায় এক দুর্ঘটনা। নাচতে নাচতে বরযাত্রী পড়ে যায় একটি বিশাল নর্দমায়! কিন্তু কীভাবে? জানা গিয়েছে যেখানে তাঁরা নাচছিল, সেটি ছিল একটি কাঠের সাঁকো। গোটা বরযাত্রীর ভার বহন করতে না পেরে ভেঙে গিয়েছে সেটি।

ঘটনাটি ঘটেছে নয়ডার ৫২ নম্বর সেক্টরের হোশিয়ারপুর এলাকার। পুলিশ সূত্রে খবর, গত শনিবার হোশিয়ার পুরের ওই দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন মহিলা- পুরুষ-সহ দু’জন শিশুও। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ওই বিয়েবাড়ির নিরাপত্তারক্ষীর কথায়, সাঁকোটি দিয়ে বিয়েবাড়ি ভিলা এবং সংলগ্ন বাগান এলাকাটি যুক্ত ছিল। আর ওই বরপক্ষের ১৫ জন মতো প্রায় দশ মিনিট ধরে নাচছিল, ওই কাঠের সাঁকোর ওপর, যা আদতে একটা পাতলা কাঠের তক্তা ছাড়া আর কিছুই নয়। আর সেইকারণে এত মানুষের ভার বহন করতে না পেরে সেটি আচমকাই ভেঙে পড়ে।

আরও জানা গিয়েছে, নর্দমায় পড়ে যাওয়ায় বরপক্ষের অনেকেরই কিছু জিনিসপত্র- সহ কিছু মুল্যবান অলঙ্কার খোয়া গিয়েছে এবং কয়েকজনের মোবাইল ফোন নষ্ট হয়ে গিয়েছে! তবে এর জন্য ওই বিয়েবাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

Banglalive-6

তবে জানা গিয়েছে ওই বিয়েবাড়িতে প্রবেশ করার এবং বাইরে বেরনোর পথ ছিল ওই একটি। যেই সেখানে প্রবেশ করুন না কেন তাকে ওই সাঁকো হয়েই বিয়েবাড়িতে প্রবেশ করতে হত। আর তারওপর বেশ খানিক্ষণ নাচানাচি করার জন্য ভার বহন করতে পারেনি ওই পলকা সাঁকো। বিয়েবাড়ির মালিকের কথায়, গত ১৫ বছর ধরে তাঁরা ওই বিয়ে বাড়ি ভাড়া দিয়ে আসছেন। কিন্তু কখনওই এমন দুর্ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু এই দুর্ঘটনার জন্য তাঁরা কনেপক্ষের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন এবং বিয়েবাড়ি ভাড়া বাবদ যে টাকা তাঁরা নিয়েছিলেন, তার পুরোটাই তাঁরা ফিরিয়ে দিয়েছেন।

Banglalive-8
আরও পড়ুন:  ১৯২ বছর আগে পাল্কি বাহকদের ডাকা প্রথম পরিবহণ ধর্মঘটে স্তব্ধ হয়েছিল কলকাতা

NO COMMENTS