নিজেকেই জরিমানা পাণ্ডেজি’র

সরকারি অফিসার। ঘুষ তো নেনই না। উলটে নিজেকেই নিজে করেন জরিমানা! 

না, গল্প নয়। এই উলটপুরাণের স্থান উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদ। সেখানকার জেলাশাসক অজয় শঙ্কর পান্ডে সম্প্রতি এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন। তবে শুধু নিজের উপর নয়, নিজের দফতরের সমস্ত কর্মীকেই অল্পবিস্তর জরিমানা করেছেন তিনি। তাঁদের দোষ? জল ভরার সময় দপ্তরের ছাদের উপরে বসানো ট্যাঙ্ক থেকে জল উপচে পড়ে যাচ্ছিল, তা খেয়াল করেননি কোনও কর্মী। সেই ‘অপরাধে’ই জরিমানা হয়েছে সবার। এমনকি অজয়বাবুর নিজেরও। জানালেন তাঁর আপ্তসহায়ক গৌরব সিংহ।

জল সংরক্ষণ নিয়ে সম্প্রতি কিছুটা সচেতনতা বেড়েছে সরকারি মহলে। গত গ্রীষ্মে চেন্নাইয়ের জলশূন্য অবস্থা টনক নড়িয়েছে অনেকেরই। তবে অজয়বাবুর মতো এত দৃঢ় পদক্ষেপ কেউ করেছেন বলে খুব একটা শোনা যায়নি। গৌরব জানান, ঘটনাটি যে দিন ঘটে, পান্ডেজিই প্রথম তাঁর বিশ্রামকক্ষে ঢুকে কোথাও জল পড়ে যাওয়ার শব্দ শুনতে পান। তিনিই বাকি কর্মীদের ডেকে বলেন খুঁজে দেখতে। যখন জানা যায় ট্যাঙ্কি থেকে জল উপচোচ্ছে, তিনি জরিমানার সিদ্ধান্ত নেন। সেই টাকা অবশ্য সকলে ভাগ করেই দেওয়া হবে এবং জমা পড়বে সরকারি কোষাগারেই। 

গৌরবের কথায়, “পান্ডেজি দপ্তরের সকলকে সতর্ক করে দিয়েছেন। বলেছেন ভবিষ্যতে এ রকম জল অপচয় বরদাস্ত করা হবে না। কারণ জল সংরক্ষণ বর্তমানে দেশের সবথেকে জরুরি প্রয়োজন।“ 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Please share your feedback

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কফি হাউসের আড্ডায় গানের চর্চা discussing music over coffee at coffee house

যদি বলো গান

ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স-এ সারা রাত ক্লাসিক্যাল বাজনা বা গান শোনা ছিল শিক্ষিত ও রুচিমানের অভিজ্ঞান। বাড়িতে আনকোরা কেউ এলে দু-চার জন ওস্তাদজির নাম করে ফেলতে পারলে, অন্য পক্ষের চোখে অপার সম্ভ্রম। শিক্ষিত হওয়ার একটা লক্ষণ ছিল ক্লাসিক্যাল সংগীতের সঙ্গে একটা বন্ধুতা পাতানো।