চটজলদি নো-মেকআপ লুক পেতে চান? মেনে চলুন এই পদ্ধতিগুলি

বর্তমানে ‘নো মেকআপ লুক’ টার্মটির সঙ্গে আমরা যথেষ্ট পরিচিত। কিন্তু এই ‘নো মেকআপ’ বলতে কিন্তু মেকআপ ব্যবহার না করা বোঝায় না। ‘নো মেকআপ’-এর অর্থ হল মেকআপ করা হবে কিন্তু তা বোঝা যাবে না। মেকআপের মাধ্যমে নিজের প্রকৃত রূপ ফুটিয়ে তোলাকে নো মেকআপ বলা হয়। একটা সময় ছিল যখন মেকআপ বলতেই মনে হত একটা জমকালো সাজ। বর্তমান সময়ে এই ট্রেন্ড আর প্রচলিত নেই। এমনকী বলিউড চিত্রতারকারাও আজকাল এই নো মেকআপ লুকে বেশি স্বচ্ছন্দ। অল্প কিছু উপাদান দিয়ে সেরে নিতে পারেন  নো মেকআপ লুক।

যে যে উপকরণগুলি প্রয়োজন-

* নুড ফাউন্ডেশন ( স্কিন টোন অনুযায়ী বেছে নিতে হবে এই ফাউন্ডেশন)

* কনসিলার

* মাশকারা

* আইল্যাশ কার্লার

* আই পেনসিল

* চকলেট ব্রোঞ্জ পাউডার

* গোলাপী ব্লাশন

* মেকআপ ব্রাশ

পদ্ধতি-

প্রথমে মুখ ভাল করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। তারপর আইব্রো পেন্সিল দিয়ে হালকা করে ভ্রু জোড়া এঁকে নিতে হবে। এক্ষেত্রে গাঢ় বাদামী রঙের আই পেন্সিল ব্যবহার করা যেতে পারে। তারপর ত্বকে ময়েশ্চারাইজিং লোশন লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর লিকুইড ফাউন্ডেশন গাল, কপাল, নাক, চিবুকে লাগিয়ে নিতে হবে। তারপর মেকআপ ব্লেন্ডারের সাহায্যে এমনভাবে ব্লেন্ড করে নিতে হবে যাতে কোনও ছোপ ছোপ দাগ না দেখা যায়। এবার নিজের স্কিন টোনের তুলনায় এক শেড কম ফাউন্ডেশন লাগিয়ে নিতে হবে। তারপর সেটাও ব্রাশ বা ব্লেন্ডারের সাহায্যে মুখে ভাল করে লাগিয়ে নিতে হবে।

এবার কনসিলার দিয়ে দুই চোখের নীচে ভাল করে লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর চোখে মাসকারা লাগিয়ে আইল্যাশ কার্ল করে নিতে হবে। তারপর মাসকারা লাগিয়ে নিতে হবে। আই পেন্সিল দিয়ে চোখের নীচের পাতা ভাল করে এঁকে নিতে হবে। কেউ মনে করলে আই লাইনারও ব্যবহার করতে পারেন।  তবে বেশি গাঢ় করে আইলাইনার লাগাবেন না। চকলেট ব্রোঞ্জ দিয়ে হালকা করে গাল, চিবুক এবং কপালে লাগিয়ে নিন। সবশেষে হালকা গোলাপি ব্লাশ দুই গালে লাগিয়ে নিন। খুব বেশি ব্লাশন ব্যবহার করবেন না। এবার একটি ন্যচরাল শেড-এর লিপস্টিক ঠোঁটে লাগিয়ে নিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here