জানেন সঞ্জয় দত্ত-সলমন অভিনীত সুপারহিট ছবি ‘সাজন’ ফিরিয়ে দিয়েছিলেন আমির!?


আমির খানের অভিনয়ের হাতেখড়ি ‘ইয়াদোঁ কি বরাত’ ছবিতে শিশু অভিনেতা হিসেবে | এরপর বড় হয়ে ওঁর প্রথম অভিনীত ছবি ছিল ‘হোলি’ | কিন্তু ‘কয়ামত সে কয়ামত তক’ ছবির মাধ্যমে পরিচিতি পান উনি | কেরিয়ারের শুরুতে আমির বেশ কয়েকটা হিট ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শককে | কিন্তু একই সঙ্গে হিট ছবির পাশাপাশি ফ্লপ ছবির তালিকাও কম ছিল না  | ‘বাজি’‚ ‘আতঙ্ক হি আতঙ্ক’‚ ‘পরম্পরা’ এবং ‘মেলা’ তেমনই কয়েকটা উদাহরণ | এরপর থেকে অনেক বাছাই করে ও ভাবনা চিন্তা করে তবেই উনি কোনো ছবি করতে রাজি হতেন |

আমিরের কাছে ছবির চিত্রনাট্য সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ | ছবি সই করার আগে উনি একাধিকবার ছবির স্ক্রিপ্ট পড়েন | চিত্রনাট্য পড়ে সন্তুষ্ট হলে তবেই গ্রিন সিগন্যাল দেন উনি | এর ফলে আমির এমন বহু ছবি করতে রাজি হননি যা পরে সুপার হিট হয়েছে | এর জন্য অবশ্য ওঁর কোনো দুঃখ নেই | শুনলে আশ্চর্য হবেন উনি অনিল কপূর মনীষা কৈরালা অভিনীত ‘১৯৪২ : আ লাভ স্টোরি’ এবং সঞ্জয় দত্ত‚ সলমন খান ও মাধুরী দীক্ষিত অভিনীত ‘সাজন’-এর মত সুপার হিট ছবি ফিরিয়ে দিতে দ্বিধা করেননি | |

মার্চ মাসের ১৪ তারিখ আমির ৫৪-এ পা দিলেন | জন্মদিন উপলক্ষে প্রতি বছরই উনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন | এই বছরেও তার অন্যথা হয়নি |সেখানে ওঁর কাছে জানতে চাওয়া হয় উনি ‘সাজন’ ফিরিয়ে দিয়েছিলেন কেন | উত্তরে ‘মিস্টার পারফেকশনিষ্ট’ বলেন ‘আমাকে লরেন্স ডিসুজা ‘সাজন’ অফার করেছিলেন | ভালো মনে নেই কোন চরিত্রটা |  আমার মনে হয়েছিল ওটা আমার টাইপের ছবি নয় | পরে সঞ্জু আর সলমন ওই ছবি করে এবং তা সুপারহিট হয় | আমার তখন মনে হয়েছিল ভালই হয়েছে | আমি থাকলে ছবিটা নষ্ট করে দিতাম | ওই ছবি সঞ্জয় আর সলমনের জন্যেই ঠিক ছিল |

আমার ‘মুন্না ভাই’ আর ‘লগে রহো মুন্না ভাই’ এই দুটো ছবিই খুব ভালো লেগেছিল | কিন্তু ওই ছবি দেখে আমার একবারের জন্যও মনে হয়নি আমি ওই ছবিতে থাকলে ভাল হত | আমার মনে হয়েছিল সঞ্জয় দত্তকে নিয়ে একদম সঠিক করেছেন পরিচালক | আসলে সব চরিত্র তো সবাইকে মানায় না | তাই নতুন ছবি করার আগে এই ব্যাপারে ভাবনা চিন্তা করতে হয় |’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here