সম্রাট নিরোর প্রাসাদের নিচে মাটির ভিতরে ২০০০ বছরের প্রাচীন চিত্রিত গোপন প্রকোষ্ঠ

1362

রোম শহর যখন পুড়ছিল তখন নাকি তিনি বাঁশি বাজাচ্ছিলেন | সেই সম্রাট নিরোর প্রাসাদের ভগ্নাবশেষ আবার উদ্ধার করে সংরক্ষণের চেষ্টা চলছে রোমে | সেই কাজেই এ বার অন্য এক আবিষ্কার | খননে আবিষ্কৃত মাটির নিচে গোপন প্রকোষ্ঠ | পশুপাখিদের রঙিন ফ্রেস্কো দিয়ে সাজানো তার দেওয়াল | ফ্রেস্কোগুলির মধ্যে চিহ্নিত করা গিয়েছে স্ফিঙ্কস এবং প্যান্থার |

তবে এই আবিষ্কার একেবারেই অপ্রত্যাশিত | সম্রাট নিরোর প্রাসাদের নাম ডোমাস ওরেয়া বা সোনার মহল | যা আছে রোমের কলোসিয়াম আর্কিওলজিক্যাল পার্কে | সেখানেই খননকার্য চলার সময় কর্মীরা ধ্বংসাবশেষে পা হড়কে পড়ে যান | তারপর সেখানে নতুন করে খননে দেখা যায় লুকিয়ে আছে গোপন ঘর | মাটির নিচে গোপন প্রকোষ্ঠ | তার দেওয়ালেই ফ্রেস্কো সৌন্দর্য | যেখানে জলচর প্রাণী ও পাখির ফ্রেস্কো থাকলেও স্ফিঙ্কসের কারণে ঘরের নাম হয়েছে স্ফিঙ্কস রুম |

যে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড সম্রাট নিরোর সমসাময়িক‚ তা ঘটেছিল ৬৪ খ্রিস্টাব্দে | ছদিন ধরে চলা অগ্নিকাণ্ডে নিরোর প্রাসাদ-সহ রোমের দুই তৃতীয়াংশ ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছিল | তার পরে আবার নতুন করে নির্মিত হয়েছিল নিরোর প্রাসাদ‚ আজ থেকে দু হাজার বছর আগে |

তবে নতুন করে বানানো প্রাসাদে বেশিদিন থাকতে পারেননি নিরো | ৬৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি প্রয়াত হন | তাঁর পরবর্তী সম্রাট ট্রাজান মাটি দিয়ে ঢেকে দেন এই প্রাসাদ | তার উপরে বানিয়েছিলেন স্নানাগার ! এরপর শতাব্দীর পর শতাব্দী জুড়ে এই প্রাসাদ বিস্মৃতির অতলে তলিয়ে যায় | ইতালিতে নবজাগরণের সময়ে রাফায়েল-সহ শিল্পীরা আকৃষ্ট হন ধ্বংসাবশেষের প্রতি | কারণ দেওয়ালের ফ্রেস্কো | এমনও হয়েছে‚ কোমরে দড়ি বেঁধে সামান্যতম জায়গা দিয়ে প্রবেশ করেছেন তাঁরা | একটিবার পূর্বসুরিদের সৃষ্টির মুখোমুখি হবে বলে |  

সেই প্রাসাদে সুড়ঙ্গের মতো গোপন প্রকোষ্ঠ যা ফ্রেস্কো দিয়ে সাজানো‚ তার বেশিরভাগ অংশই এখনও মাটির নিচে | খননে সেটিকে সম্পূর্ণ তুলে আনা হলে বিঘ্নিত হতে পারে নিরোর প্রাসাদের বাকি অংশ | আশঙ্কা‚ হয়তো এর ফলে ভিত নড়ে গিয়ে সম্পূর্ণ প্রাসাদ ফের ধসে যেতে পারে | 

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.