কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে এই সহজ ঘরোয়া উপায়গুলি মেনে চলুন

একটা বয়সের পর প্রায় সব মানুষই কোমরের ব্যথায় কষ্ট পান। শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব, হাড়ের ক্ষয় বা দীর্ঘক্ষণ একভাবে বসে থাকার জন্য কোমরে ব্যথা অনুভব হতে পারে। আবার অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই ব্যথার উৎস হাড় নাকি নার্ভ, তা অনেকসময়ে বোঝা যায় না। অধিকাংশের ক্ষেত্রে দেখা যায় ব্যথার উৎস ঠিকভাবে নির্ধারিত না হওয়ায় দীর্ঘ সময় ওষুধ খেয়েও ব্যথা কমে না। সেইজন্য প্রথমে ব্যথার উৎসটিকে সঠিকভাবে নির্ধারণ করতে পারলেই সমস্যার সমাধান সম্ভব।  তবে কোমর ব্যথা নিরাময়ের কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি রয়েছে। সেগুলি ব্যবহার করলে খানিকটা হলেও ব্যথার উপশম হওয়া সম্ভব।

* বরফ সেঁক- বরফ সাময়িকভাবে ব্যথা এবং ফোলা ভাব কমিয়ে দিতে সাহায্য করে। কীভাবে নেবেন বরফ সেঁক? একটি তোয়ালেতে কিছু বরফের টুকরো পেঁচিয়ে ব্যথার স্থানে ২০ মিনিট রাখুন। এছাড়া বরফ আইস ব্যাগে ভরেও কোমরে সেঁক দিতে পারেন। এতে খানিকটা আরাম পাওয়া যাবে।

* বিশ্রামের পরিমাণ কমিয়ে দেওয়া- অতিরিক্ত বিশ্রামের ফলেও কিন্তু কোমরে ব্যথা হতে পারে। অর্থাৎ, আপনি যদি দীর্ঘক্ষণ শুয়ে থাকেন তবে কোমরে ব্যথা হতে পারে। তাই খানিকক্ষণ বিছানায় শুয়ে থাকার পর উঠে কিছুটা হাঁটা-চলা করুন তাহলে দেখবেন ব্যথা কমে যাবে।

* বসার ভঙ্গি পরিবর্তন- অনেক সময়ে বসার ভঙ্গি সঠিক না হওয়ার কারণে ব্যথা সৃষ্টি হতে পারে। তাই যতটা সম্ভব কোমর ও ঘাড় সোজা করে বসার চেষ্টা করুন।

* ব্যায়াম করুন- অনেক সময়ে যোগাভ্যাস করলেও কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তবে তার জন্য অবশ্যই কোনও চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে কোনও ফিজিও থেরাপিস্ট-এর তত্ত্বাবধানে ব্যায়াম অভ্যাস করবেন।

* ব্যথানাশক মলম ব্যবহার- পেইনকিলার বা ব্যাথানাশক ওষুধ খাওয়ার থেকে মলম ব্যবহার করা বেশি ভাল। বাজারে চলতি যেকোনও ব্যথার ওষুধ বা স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন। পেইনকিলার ওষুধ অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

* মেথি বীজ- মেথি বীজের গুড়ো দুধের সঙ্গে মিশিয়ে একটা মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি ব্যথার জায়গায় মালিশ করুন। উপকার পাবেন।

এ তো গেল কয়েকটি ঘরোয়া পদ্ধতি। পাশাপাশি কয়েকটি খাবার যদি আপনার খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন তাহলে প্রাকৃতিকভাবে কোমর ব্যথার হাত থেকে মুক্তি পেটে পারেন।

* আদা- পটাশিয়ামের অভাবের ফলে নার্ভের সমস্যা দেখা দেয়। আদাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম। প্রতিদিন নিয়মিত আদা খেলে কোমরের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

* হলুদ- দুধের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে সেই মিশ্রণটি নিয়ম করে খেলে কোমরের ব্যথা অনেকটাই কমতে পারে।

* লেবু- লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে। ভিটামিন সি যন্ত্রণা উপশমে খুবই কার্যকারী ভূমিকা পালন করে।

* অ্যালোভেরা- প্রতিদিন নিয়ম করে অ্যালোভেরা শরবত খেলে কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে।

এছাড়াও প্রতিদিন নিয়ম করে দুধ, ঘি, ফল, শাকসবজি, বাদাম খান। কারণ এই খাবারগুলি ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম-এ ভরপুর। এইসব খাবার খেলে কোমর ব্যথার সঙ্গে মোকাবিলা করতে পারবেন সহজেই। তবে যেকোনও ঘরোয়া পদ্ধতি নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Please share your feedback

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কফি হাউসের আড্ডায় গানের চর্চা discussing music over coffee at coffee house

যদি বলো গান

ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স-এ সারা রাত ক্লাসিক্যাল বাজনা বা গান শোনা ছিল শিক্ষিত ও রুচিমানের অভিজ্ঞান। বাড়িতে আনকোরা কেউ এলে দু-চার জন ওস্তাদজির নাম করে ফেলতে পারলে, অন্য পক্ষের চোখে অপার সম্ভ্রম। শিক্ষিত হওয়ার একটা লক্ষণ ছিল ক্লাসিক্যাল সংগীতের সঙ্গে একটা বন্ধুতা পাতানো।