ছুলির দাগ নিয়ে চিন্তিত? জেনে নিন ঘরোয়া প্রতিকার

লাল, বাদামী বা গাঢ় বাদামী বর্ণের দাগকে ছুলি বলে। ছুলি স্বাস্থ্যগত কোনও ঝুঁকির কারণ না হলেও আত্মবিশ্বাস কমিয়ে দেয়। ত্বকে মেলানিনের পরিমাণ বেড়ে যায় বলে ছুলি হয়। মেলানিন বৃদ্ধি পাওয়ার কারণ হচ্ছে- সূর্যরশ্মি, হরমোনের অসামঞ্জস্যতা ও বংশানুক্রম ইত্যাদি। কখনও কখনও ছুলি হলে জ্বালা বা চুলকানির মতো অনুভূতির সৃষ্টি হতে পারে।

ছুলি দূর করার অনেক আধুনিক চিকিৎসা আছে যেমন- ব্লিচিং, রেটিনয়েডস, কেমিক্যাল পিল, লেজার ও ক্রায়োসার্জারি ইত্যাদি তবে সেগুলি ব্যায়বহুলও। তবে প্রাকৃতিক উপায়েও ছুলির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। আসুন প্রাকৃতিক উপায়ে ছুলি নিরাময়ের পদ্ধতিগুলি জেনে নেওয়া যাক।

ফেস মাস্ক

দুই টুকরো শশা ও দুই টুকরো স্ট্রবেরি নিয়ে ভালোভাবে ম্যাশ করে নিন। এবার এর সঙ্গে অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। এই মাস্কটি ছুলির উপরে লাগিয়ে শুকোতে দিন। তারপর ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। ছুলি থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য এবং ত্বকের টোন উন্নত করার জন্য সপ্তাহে চারবার এটি ব্যবহার করুন।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজে থাকা এক্সফলিয়েটিভ উপাদান ছুলি বা বাদামী দাগ দূর করতে উপকারী। ভালো ফল পাওয়ার জন্য লাল পেঁয়াজ ব্যবহার করুন। একটি লাল পেঁয়াজ মোটা করে কেটে নিয়ে ছুলিতে আক্রান্ত স্থানে দিনে দুই বার আস্তে আস্তে ঘষুন। যতদিন অবধি না ছুলি ফ্যাকাশে হয় ততদিন এটি ব্যবহার করুন।

লেবু-চিনির স্ক্রাব

ছুলির জন্য আরেকটি কার্যকর পদ্ধতি হল লেবুর স্ক্রাব। একটি লেবু মাঝখান থেকে কেটে নিয়ে অর্ধেক অংশের উপর আধা চামচ চিনি ছিটিয়ে নিন। তার পর এটি আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে মালিশ করতে থাকুন। মিনিট দশেক মালিশ করার পর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এ ভাবে সপ্তাহ দুয়েক নিয়মিত ব্যবহার করলে ছুলির সমস্যায় উপকৃত হবেন।

টক দই

টক দইয়ের ল্যাক্টিক অ্যাসিড ছুলি দূর করতে খুবই কার্যকরী একটি উপাদান।  ফলে ত্বকের হাইপারপিগমেন্টেশন বাধাপ্রাপ্ত হয়। ৩ চামচ টক দই নিয়ে একটি কটন বলের সাহায্যে শরীরের ছুলি আক্রান্ত অংশে লাগিয়ে অন্তত পনেরো মিনিট রাখুন। তার পর সামান্য উষ্ণ জল দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। দিনে ৩-৪ বার এটি ব্যবহার করতে পারলে ছুলির সমস্যার সঙ্গে সঙ্গে কমবে ব্রণ-ফুসকুড়ির সমস্যাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here