আপনি যে ওষুধ কিনছেন তা আসল না নকল, জেনে নিন সহজেই

আপনি যে ওষুধ কিনছেন তা আসল না নকল, জেনে নিন সহজেই

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

আমরা কমবেশি সকলেই ওষুধের উপর নির্ভরশীল। তাই প্রত্যেকের বাড়িতেই কমবেশি ওষুধ কিনতেই হয়। দোকান থেকে হোক বা অনলাইন, আপনি নিয়মিত যে ওষুধপত্র কিনছেন সেগুলো আসল না নকল তা জানবেন কী করে?

আপনার কেনা ওষুধটি আসল না নকল তা সহজেই চেনার উপায় রয়েছে। আর এই উপায় জানতে সাহায্য করেছেন বিশেষজ্ঞরাই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’র পরামর্শ অনুযায়ী,  এই নকল ওষুধ চেনার সহজ উপায়গুলি জেনে নিন।

প্রথমত ট্যাবলেট বা ক্যাপসুল জাতীয় ওষুধের ক্ষেত্রে ওষুধের রঙ, আকৃতি, ওষুধের বানান এবং ওষুধের মোড়কের রং এগুলি সবই ভাল করে দেখে নিতে হবে। কোনও রকম পার্থক্য বা সন্দেহজনক কিছু চোখে পড়লেই ফিরিয়ে দিন বিক্রেতাকে। স্বচ্ছ ক্যাপসুলের ক্ষেত্রে ভিতরে থাকা ওষুধের গুঁড়োর পরিমাণ আগের তুলনায় কম বা বেশি আছে কিনা তাও ভাল করে দেখে তবেই নিন। সিরাপ, টনিক জাতীয় ওষুধের ক্ষেত্রে ওষুধের বোতলে সিল বা প্যাকেজিং ভাল করে দেখে নিয়ে তবেই কিনবেন।

দ্বিতীয়ত, ওষুধের মোড়কের গায়ে থাকে ইউনিক অথেনটিকেশন কোড। ওষুধ কেনার পর তা সম্বন্ধে মনে কোনও রকম সন্দেহ থাকলে ৯৯০১০৯৯০১০ নম্বরে এসএমএস করুন ইউনিক অথেনটিকেশন কোড টি। যদি সেটি আসল ওষুধ হয় তবে যেখানে এই ওষুধটি তৈরি হয়েছে  সেখান থেকে তাপনি পেয়ে যাবেন একটি অথেনটিকেশন মেসেজ।

তৃতীয়ত, ওষুধ খাওয়ার পর যদি শরীরে অস্বস্তি শুরু হয়, বা অ্যালার্জি হলে একটুও সময় নষ্ট না করে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। প্রয়োজনে সেই ওষুধটি চিকিৎসককে দেখান।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Social isolation to prevent coronavirus

অসামাজিকতাই একমাত্র রক্ষাকবচ

আপনি বাঁচলে বাপের নাম— এখন আর নয়। এখন সবাই বাঁচলে নিজের বাঁচার একটা সম্ভবনা আছে। সুতরাং বাধ্য হয়ে সবার কথা ভাবতে হবে। কেবল নিজের হাত ধোওয়ার ব্যবস্থা পাকা করলেই হবে না। অন্যের জন্য হাত ধোওয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। এক ডজন স্যানিটাইজ়ার কিনে ঘরে মজুত রাখলে বাঁচা যাবে না। অন্যের জন্য দোকানে স্যানিটাইজার ছাড়তে হবে। আবেগে ভেসে গিয়ে থালা বাজিয়ে মিছিল করলে হবে না। মনে রাখতে হবে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, জানলায় বা বারান্দায় দাঁড়িয়ে থালা বাজাতে। যে ভাবে অন্যান্য দেশ নিজের মতো করে স্বাস্থ্যকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করছে। রাস্তায় বেরিয়ে নয়। ঘরে থেকে।