ঐশ্বর্যের সঙ্গে প্রেম করেছিলেন বলেই কি বিবেক ওবেরয়ের উজ্জ্বল ভবিষ্যতে অন্ধকার নেমে আসে?

প্রথম ছবি কম্পানি তে অভিনয়ের জন্য খুবই প্রসংসিত হয়েছিলেন বিবেক ওবেরয় | ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড ও পান এই ছবির জন্য | ওই একই বছর (২০০২) মুক্তি পায় সাথিয়া | এবং এই ছবি মুক্তি পাওয়ার পর কারুর মনে আর সন্দেহ থাকে না যে উনি একজন সফল এবং উচ্চমানের অভিনেতা হবেন | কিন্তু মন্দ কপাল হলে যা হয় ! বিবেক জড়িয়ে পরলেন ঐশ্বর্য রাইয়ের সঙ্গে | ব্যাস ! এরপর ওঁর জীবনে নেমে এলো দুর্ভাগ্য | কিছুদিনের মধ্যেই বলিউড থেকে হারিয়ে গেলেন উনি |

ঘটনার সুত্রপাত ৩১ মার্চ‚ ২০০৩ সাল | ওইদিন বিবেক একটা সাংবাদিক সম্মলেন ডেকে জানান সলমন খান নাকি ওঁকে হুমকি দিচ্ছেন | সেই সময় সলমন আর ঐশ্বর্যের জীবনে বেশ উথাল পাথাল চলছিল | খুব বেশীদিন হয়নি ঐশ্বর্য সলমনের সঙ্গে সম্পর্ক শেষ করে বিবেকের সঙ্গে ডেটিং করছিলেন |

অবশ্য ঐশ্বর্য বিবেকের সঙ্গে ওঁর সম্পর্কের কথা কোনদিনই স্বীকার করেননি | কিন্তু সেই সময় দুজনকে বিভিন্ন অনুষ্ঠান‚ পার্টিতে একসঙ্গে দেখা যেত | অন্যদিকে সলমন খানের সময় ভালো যাচ্ছিল না সেই সময়‚ এর কয়েকদিন আগে হিট অ্যান্ড রান কেসে জড়িয়েছেন উনি | দ্বিতীয়ত ঐশ্বর্যের সঙ্গে ব্রেক আপ |

সলমনের সঙ্গে ব্রেক আপের ফলে ঐশ্বর্যও সেই সময় মানসিক সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলেন | আর বেচারা বিবেক শুধুমাত্র ওঁর ভালো বন্ধুঐশ্বর্যের পাশে থাকতে চেয়েছিলেন | তাই উনি সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে সলমনের নামে অভিযোগ করেন |

বলা যেতে পারে এই সাংবাদিক সম্মেলনের কারণেই বিবেকের কেরিয়ার শেষ হয়ে গেল | ঐশ্বর্যের জন্য উনি এমনটা করেন | আর পরে ঐশ্বর্য সাফ জানিয়ে দেন উনি এই ব্যপারে কিছুই জানতেন না | এই ঘটনার পর অ্যাশ বিবেক কে এড়িয়ে চলতে আরম্ভ করেন |

সলমনের বিরুদ্ধে কথা বলার জন্য একরকম বয়কট করা হয় বিবেককে | ওঁর উজ্জ্বল ভবিষ্যতে নেমে আসে অন্ধকার | একবার প্রযোজক আদিত্য চোপরা বিবেক ওবেরয় সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে বলেছিলেন বিবেক একদিন শাহরুখ খান হতে পারতো | কিন্তু নিজের হাতে সেই সম্ভবনা শেষ করেছে সে |

এর বহু বছর বাদে ফারহা খানের টক শোতে উপস্থিত হয়েছিলেন বিবেক | সেই সময় বিবেক পরোক্ষভাবে জানিয়েছিলেন ঐশ্বর্য ওঁকে সাংবাদিক সম্মেলন ডাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন | কিন্তু পরে উনি তা সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন এবং বিবেককে একা ছেড়ে দেন | | এছাড়াও বিবেক জানিয়েছিলেন সলমনের ভাই সোহেল খানের সঙ্গে গভীর বন্ধুত্ব ছিল ওঁর | কিন্তু সলমনের বিরুদ্ধে কথা বলার ফলে সেই বন্ধুত্বও শেষ হয়ে যায় | পরে অবশ্য বিবেক বহুবার সলমনের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছিলেন | কিন্তু সলমন ওঁকে মাফ করেননি |

তারপর কেটে গেছে ১৫ বছর‚ বিবেক কিন্তু এখনো সেই ঘটনার মাশুল দিচ্ছেন |  অন্যদিকে সলমন আর ঐশ্বর্য কিন্তু দিন কে দিন উন্নতি করেছেন | আর বিবেক ওঁদের মাঝে পড়ে বলিউডের একজন সাধারণ অভিনেতা হয়ে রয়ে গেলেন !

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here