যে সব ধর্মস্থানে এখনও ‘ভূত তাড়ানো’ হয়

ভূত আছে কি নেই‚ অশরীরী আত্মা মানুষের উপর ভর করে কি না‚ এই তর্ক চলতেই থাকবে | যতদিন এই দ্বন্দ্ব থাকবে ততদিন সমাজে বহাল তবিয়তে থাকবে ঝাড়ফুঁক | ভারতের বিভিন্ন অংশে আছে এমন পাঁচটি ধর্মস্থান‚ যেখানে ঈশ্বর উপাসনার পাশাপাশি ‘তাড়ানো’ হয় মানুষের উপর ভর করে থাকা প্রেতাত্মা |

মেহেন্দিপুর বালাজি মন্দির :

রাজস্থানের এই মন্দির ‘ভূত তাড়ানোর’ জন্য খুবই প্রসিদ্ধ | এখানে ভূত তাড়াতে গেলে দেবতাকে তিনটি লাড্ডু উৎসর্গ করতে হয় | তারপর পূজারী যা যা বলেন‚ সব মুখ বুজে পালন করতে হয় | কোনও প্রশ্ন করা যায় না | সব রীতি পালিত হলে পিছনে একবারও না তাকিয়ে বেরিয়ে যেতে হয় মন্দির থেকে |

হজরত সৈয়দ আলি দরগা :

গুজরাতের এই দরগায় ধর্ম-বর্ণ নির্বেশেষে মানুষ যান প্রেতাত্মার কবল থেকে মুক্ত হতে | যাঁদের উপর ভর হয়েছে তাঁদের পরিজনরা ঘর ভাড়া করে থাকেন | দরগা থেকে অনবরত শোনা যায়‚ ভূতপীড়িতদের চিৎকার |

দেবী মহারাজ মন্দির :

মধ্য প্রদেশের মালাজপুরে এই মন্দিরে প্রতি বছর ভূত মেলা বসে | প্রত্যেক পূর্ণিমায় বসে ভূত তাড়ানোর আসর | কর্পূর হাতে বসে থাকেন ভূতে ভর হওয়া মানুষজন | তাঁদের উপর এসে পড়ে ওঝার ঝাঁটার আঘাত |

দত্তাত্রেয় মন্দির :

মধ্যপ্রদেশের জেলা বেঠলের গঙ্গাপুরে আর এক ভূত তাড়ানোর মন্দির | প্রতি পূর্ণিমায় দেখা যায় সেই ছবি | মন্দিরের নিঃশব্দতা ভেঙে দেয় আক্রান্তদের আর্ত চিৎকার |

নিজামুদ্দিন দরগা :

দিল্লির এই দরগায় পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে | কাওয়ালি গানের মাঝেই শোনা যায় তীক্ষ্ণ চিৎকার | ভেসে আসে দরগার কোণায় একটেরে ঘর থেকে | এখানেই নারী পুরুষ নির্বিশেষে সবার উপর থেকে নামানো হয় বিদেহী আত্মা |

কী বলবেন একে ? কুসংস্কার ? অন্ধ বিশ্বাস ? বিশ্বাসে মিলিয়ে যাওয়ার থিওরিতে সবই চলছে স্মার্ট ফোন-স্যাটেলাইটের ইন্ডিয়াতে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here