কোন সময়ে স্নান করা স্বাস্থ্যের পক্ষে ভাল- দিনে না রাতে?

5273

শীত বিদায় নিতেই তাপমাত্রার পারদ ক্রমশই উর্ধ্বমুখী। আর গরমের দিনে স্থানের থেকে ভাল আর কিছুই হয় না। প্রচন্ড গরমের দিনে একাধিকবার স্নান করা হয়েই যায় অনেক সময়ে। কিন্তু জানেন কি দিনের কোন সময়ে স্নান করা উচিত, বা কোন সময়ে স্নান করলে শরীর ভাল থাকে?

স্নান কখন করা উচিত, করলে তা ঠান্ডা জলে নাকি গরম জলে করা উচিত- তা নিয়ে নানা মতামত রয়েছে। তবে একটা বিষয়ে সকলেই সহমত তা হল, শরীরকে রোগমুক্ত এবং তরতাজা রাখতে স্নান করা খুবই জরুরী। অনেকেই রয়েছেন যাঁরা সকালবেলা স্নান না করে বাড়ি থেকে বেরোনোর কথা ভাবতেই পারেন না। আবার যারা কর্মব্যস্ত জীবনে সকালে স্নান করার সময় পান না, তাঁরা দিনের শেষে স্কুল-কলেজ বা অফিস থেকে ফিরে অনেকক্ষণ সময় নিয়ে স্নান করা পছন্দ করেন। আবার অনেকে এমনও রয়েছেন যাঁরা দিনের বেলা স্নান করে বাড়ি থেকে বেরোলেও, রাতে বাড়ি ফিরে আর একবার স্নান না করলে ঘুমোতে পারেন না।

সকালে স্নানের কিছু উপকারিতা রয়েছে। যেমন- সকালবেলা স্নান করলে ত্বকের কোনও অংশের ফোলাভাব কমে যেতে সাহায্য করে। এছাড়াও সকালে স্নান করলে সারাদিনের জন্য কাজে সক্রিয় থাকা যায়। তাছাড়া সকালে যদি ব্যায়াম বা ওয়ার্কআউটের অভ্যাস থাকে, তাহলে অবশ্যই সকালে স্নান করা উচিত। ওয়ার্কআউটের ফলে শরীর থেকে যে ঘাম নিঃসরণ হয়, তা শরীরে জমতে দেওয়া উচিত নয় আর সেই কারনেই সকালে ওয়ার্কআউটের পরে স্নান করে নেওয়া উচিত।

পাশাপাশি রাতে স্নান করারও কিন্তু অনেক উপকারিতা রয়েছে।  যাঁদের রাতে ঘুম না আসার সমস্যা রয়েছে, তাঁদের জন্য রাতে স্নান করা খুবই উপকারি। ঈষৎ উষ্ণ জলে স্নান করলে রাতে খুব সহজেই ঘুম চলে আসে। সারাদিন শরীর থেকে যে অতিরিক্ত তেল এবং ঘাম বের হয়, রাতে স্নান করলে তা পরিষ্কার হয়ে যায়। তবে রাতে স্নান করার সময়ে কয়েকটি বিষয় মনে রাখা দরকার। সেগুলি হল-

* রাতে কখনওই ঠান্ডা জলে স্নান করা উচিত নয়। যে কোনও ঋতুতে রাতে ঠান্ডা জলে স্নান করলে ঠান্ডা-গরমে শরীর খারাপ হওয়ার আশঙ্কা থাকে, বিশেষত যাঁদের ঠান্ডা লাগার প্রবণতা রয়েছে। তার পরিবর্তে ঈষৎ-উষ্ণ জল ব্যবহার করলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয় এবং শরীরে যন্ত্রণার উপশম হয়। আরও ভাল হয় যদি স্নানের জলে কোনও এসেন্সিয়াল অয়েল ব্যবহার করা যায়।

* রাতে স্নান করে অবশ্যই চুল শুকিয়ে নেওয়া উচিত। ভিজে চুলে ঘুমোতে যাওয়া ঠিক নয়। কারণ ভিজে চুলে বেশিক্ষণ থাকলে চুলের গোড়া দুর্বল হয়ে পড়ে, ফলে চুল উঠে যেতে পারে।

* রাতে বাড়ি ফিরে আগে স্নান সেরে নিয়ে তারপর খেতে বসা উচিত। ভরা পেটে স্নান করা কখনওই উচিত নয়। কারণ স্নানের সময়ে শরীরে মেটাবলিজম কমে যায়। তাই ভরা পেটে স্নান করলে খাবার ঠিকমতো হজম হয় না।

* রাতে স্নানের পর অবশ্যই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা উচিত। কারণ স্নানের পর ত্বক রুক্ষ-শুষ্ক অনুভব হতে পারে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.